০৫ মার্চ ২০২৪, মঙ্গলবার, ০২:৩৪:৪৯ পূর্বাহ্ন


সিরাজগঞ্জে কিশোর গ্যাংয়ের মুলহোতা-সহ ২ জন গ্রেফতার
স্টাফ রিপোর্টার :
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৯-০২-২০২৪
সিরাজগঞ্জে কিশোর গ্যাংয়ের মুলহোতা-সহ ২ জন গ্রেফতার সিরাজগঞ্জে কিশোর গ্যাংয়ের মুলহোতা-সহ ২ জন গ্রেফতার


সিরাজগঞ্জ জেলার  সদর থানা এলাকা সাংবাদিক হামিদের স্ত্রী ও তার দুই মুক্তিযোদ্ধা বোনের উপর হামলা, ভাংচুরের অপরাধে  কিশোর গ্যাংয়ের মুলহোতা-মোঃ কামাল হোসেন  ও তার সহযোগী মোঃ ইমরানকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১২। 

শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৭টায় সিরাজগঞ্জ জেলার সদর থানাধীন সয়া ধানগড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে।  এসময় তাদের কাছ থেকে ২টি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলো: মোঃ কামাল হোসেন (৩০), সে সিরাজগঞ্জ জেলার ও সদর থানার সয়া ধানগড়া মধ্যপাড়া এলাকার মৃত আনসার আলী সেথেরেন ছেলে ও  মোঃ ইমরান (২২), সে একই এলাকার মোঃ লুৎফর রহমান লুতু’র ছেলে। 

শুক্রবার রাতে র‌্যাব-১২,এর পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।

র‌্যাব-১২ জানায়, মঙ্গলবার দুপুরে সিরাজগঞ্জ পৌরসভার সয়াধানগড়া মাছুমপুর ঈদগাহ মাঠে ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে সাংবাদিক আব্দুল হামিদের দুই ভাগ্নে মো. রানা আহমেদ (২৫) ও ঐশ্বর্য শেখের (২১) কথা কাটাকাটি ও ঝগড়া হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বুধবার দুপুরের দিকে সয়াধানগড়া মহল্লার কিশোর গ্যাংয়ের লিডার কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ১৫-২০ জনের সন্ত্রাসী গ্রুপ রামদা, ছুরি, লোহার রড, লাঠি ইত্যাদি দেশি অস্ত্র নিয়ে আব্দুল হামিদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে শক্তির মহড়া প্রদর্শন করে। তারা আতঙ্ক সৃষ্টি করে বাসায় ব্যাপক ভাঙচুর করে। এতে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে।

এ সময় সাংবাদিক হামিদের স্ত্রী সাফিয়া খাতুন, বোন বীর মুক্তিযোদ্ধা রাহেলা খাতুন ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহেলা বেগম এগিয়ে আসলে তাদেরও মারপিট এবং অস্ত্র উঁচিয়ে হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় রাতে সাংবাদিক আব্দুল হামিদ বাদী হয়ে ১১ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও ১০-১২ জনের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে মামলা করেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বেশ কিছুদিন সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার সয়াধানগড়া মহল্লায় কিশোর গ্যাংয়ের উৎপাত আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। তাদের কারণে এলাকাবাসীরা আতঙ্কিত ও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।

গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জ জেলার সদর থানায় ৪/৫ আইন-শৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ (দ্রুত বিচার) ২০০২ আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এ ধরণের মাদক উদ্ধার অভিযান সচল রেখে মাদকমুক্ত সোনার বাংলা গঠনে র‌্যাব-১২ বদ্ধপরিকর।