২৫ জুন ২০২৪, মঙ্গলবার, ০৪:৩২:০৮ পূর্বাহ্ন


সারারাত চালু রাখেন Wi-Fi রাউটার? অজান্তেই ডেকে আনছেন বড় বিপদ!
ফারহানা জেরিন
  • আপডেট করা হয়েছে : ২৩-০৫-২০২৩
সারারাত চালু রাখেন Wi-Fi রাউটার? অজান্তেই ডেকে আনছেন বড় বিপদ! ফাইল ফটো


গত কয়েক বছরে দ্রুত বদলে গিয়েছে পৃথিবীর মানুষের জীবন। এই সময় ইন্টারনেট ছাড়া কোনও কাজই প্রায় করা সম্ভব নয়। অনেকেই বাড়িতে Wi-Fi ব্যবহার করেন। দিনরাত Wi-Fi রাউটার চালু থাকে তাঁদের বাড়িতে।

কিন্তু রাতে রাউটার বন্ধ করে রাখাই ভাল। এতে অন্তত দু'টি বড় সুবিধা পাওয়া যেতে পারে। না হলে লাভের থেকে ক্ষতিই বেশি।

ইদানীং ইন্টারনেট জীবনের অপরিহার্য অংশ হয়ে উঠেছে। ব্রডব্যান্ড প্ল্যানের দামও এতটাই কমে গিয়েছে যে সবাই বাড়িতে Wi-Fi ইনস্টল করে নিচ্ছেন। Wi-Fi থেকে আনলিমিটেড ডেটা পাওয়া যায়, ফলে সারাদিন নেট সার্ফিংয়ে কোনও বাধা নেই।

অনেক সময় আমরা ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহার করার সময় ডেটা বন্ধ করে রাখি, কিন্তু বাড়িতে ইনস্টল করা Wi-Fi রাউটার সব সময় চলতে থাকে। বাড়ির সমস্ত ডিভাইস এটির সঙ্গে যুক্ত থাকে। কিন্তু রাতে অপ্রয়োজনে Wi-Fi রাউটার চালু রাখা মোটেও ভাল নয়।

Wi-Fi আসলে আমাদের স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে। এটা খুব কম মানুষই জানেন। তাই যখন কাজের প্রয়োজন তখন Wi-Fi বন্ধ করে রাখাই ভাল। বিশেষ করে যখন রাতে সকলে ঘুমোতে যান।

Wi-Fi রাউটারের বিপদ কোথায়? Wi-Fi-কে WLAN-ও বলা হয়। আসলে এটি একটি বেতার নেটওয়ার্ক যেখানে অন্তত একটি অ্যান্টেনার সাহায্যে ইন্টারনেট সংযুক্ত থাকে ল্যাপটপ, কম্পিউটার, ফোনের মতো ওয়্যারলেস ডিভাইসের সঙ্গে। Wi-Fi নেটওয়ার্ক-এ ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক ফ্রিকোয়েন্সি (EMFs) ব্যবহার করে।

অনেক বেশি সময় Wi-Fi-এর সংস্পর্শে থাকলে মানুষের শেখার ক্ষমতা হ্রাস করতে পারে। এছাড়াও, এটি যেকোনও মানুষের ঘুমের সমস্যাও সৃষ্টি করতে পারে এটি। এই কারণে রাতে নরপাইনফ্রিনের ক্ষরণ বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কাও থাকে। এ ছাড়া বিপজ্জনক বিষয় হলো এর কারণে আলঝাইমার রোগের আশঙ্কাও বাড়ে।

স্লিপ সায়েন্স কোচ ও স্লিপ সোসাইটির সহ-প্রতিষ্ঠাতা ইসাবেলা গর্ডন বলেন, রাতে Wi-Fi বন্ধ করে রাখাই প্রয়োজন। এটি ভাল ঘুমের জন্য প্রয়োজনীয়। অন্যদিকে হ্যাকিংয়ের ঝুঁকি কমাতে পারে।