১৬ এপ্রিল ২০২৪, মঙ্গলবার, ০১:৩৮:১৩ পূর্বাহ্ন


শিশুদের সুরক্ষিত রাখুন অ্যাডিনয়েড থেকে
ফারহানা জেরিন
  • আপডেট করা হয়েছে : ০১-০৪-২০২৪
শিশুদের সুরক্ষিত রাখুন অ্যাডিনয়েড থেকে প্রতিকী ছবি


আমাদের দেশে শীতের পর গ্রীষ্মকাল শুরু হলেই শিশুদের শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা বাবা-মায়ের জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়ায়। বিশেষ করে, অনেক শিশুর মধ্যে অ্যাডিনয়েড সংক্রান্ত সমস্যা দেখা যায়। গুরুগ্রামের সি,কে,বিড়লা হাসপাতালের অ্যালার্জি পরামর্শক এবং ইএনটি বিশেষজ্ঞ ডক্টর বিজয় ভার্মা পরিবর্তনশীল ঋতুতে শিশুদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দিয়েছেন। ডাক্তার বলেছেন যে, একজন ইএনটি বিশেষজ্ঞ হওয়ার কারণে তাকে প্রায়শই এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয় যেখানে পরিবর্তনশীল ঋতুর সাথে অ্যাডিনয়েড সম্পর্কিত লক্ষণগুলি বৃদ্ধি পায়।চলুন আজ জেনে নেই অ্যাডিনয়েড কী।

অ্যাডিনয়েড হল নাকের পিছনে টিস্যুর ছোট প্যাচ যা ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাস আটকে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে।যখন এই টিস্যুগুলি ফুলে যায় বা বড় হয়ে যায় তখন তারা অনুনাসিক পথগুলিকে বাধা দিতে পারে, যার ফলে মুখ দিয়ে শ্বাস নিতে বা শ্বাস নিতে অসুবিধা হতে পারে।নাক ডাকা,ঘন ঘন সাইনাস সংক্রমণ,এমনকি স্লিপ অ্যাপনিয়ার সমস্যাও দেখা দেয়।যেসব শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাচ্ছে, তাদের স্বাস্থ্যের ওপর অ্যাডিনয়েডের সমস্যা ব্যাপক প্রভাব ফেলে।

প্রচণ্ড তাপ, বৃষ্টি, তীব্র ঠান্ডা। এই পরিবর্তনশীল ঋতুগুলি অ্যাডিনয়েডের সমস্যায় আক্রান্ত শিশুদের জন্য সমস্যা তৈরি করে। গরম ও আর্দ্র মাসে অ্যাডিনয়েডের সমস্যা বেড়ে যায় কারণ ধুলাবালি ও দূষণ বেড়ে যায়। এই কারণে নাক দিয়ে শ্বাস-প্রশ্বাসে প্রতিবন্ধকতা, ক্রমাগত কাশি ও গলায় অস্বস্তি হয়।যার কারণে শিশুরা ঠিকমতো শ্বাস নিতে পারে না।

একই সঙ্গে বর্ষার পাশাপাশিও কিছু চ্যালেঞ্জও আসে।উচ্চ আর্দ্রতা,মোল্ড এবং ছত্রাকের স্পোর বাতাসে উপস্থিত থাকার কারণে অ্যাডিনয়েড সম্পর্কিত সমস্যা বৃদ্ধির ঝুঁকি থাকে,যা ঘন ঘন সাইনাস সংক্রমণ এবং শ্বাস নিতে অসুবিধার কারণ হতে পারে।উপরন্তু এই ঋতুতে শিশুরা প্রায়শই ভাইরাল সংক্রমণের ঝুঁকিতে থাকে,যা তাদের শ্বাসযন্ত্রের স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে।

বর্ষার পর শীত শুরু হলে নতুন ধরনের চ্যালেঞ্জ দেখা দেয়। ঠাণ্ডা এবং শুষ্ক বাতাস অ্যাডিনয়েড টিস্যুকে আরও খারাপ করে দেয়,যার ফলে নাক এবং গলায় অস্বস্তি হয়।এছাড়া ঠাণ্ডা থেকে বাঁচতে ঘরের ভেতরে ব্যবহৃত হিটার ইত্যাদি আর্দ্রতা কমায়,শ্বাসকষ্ট বাড়ায় এবং শিশুদের সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ায়।

শিশুদের অ্যাডিনয়েড সমস্যা নিরাময়ের জন্য অনেক ধরনের পন্থা অবলম্বন করতে হবে।বিশেষ করে পরিবর্তনশীল আবহাওয়ার প্রভাবের দিকে খেয়াল রাখতে হবে এবং সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।ইনডোর এয়ার কোয়ালিটি অর্থাত্‍ ঘরের ভিতরে বাতাসের গুণমান সঠিকভাবে বজায় রাখতে হবে।রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বজায় রাখতে বারবার হাত ধোয়া এবং পর্যাপ্ত পরিমাণে জল পান করা প্রয়োজন।যদি শিশুর মধ্যে অ্যাডিনয়েডের লক্ষণগুলি বাড়তে দেখা যায়,তবে পিতামাতাদেরও এই বিষয়ে সতর্ক হতে হবে এবং অবিলম্বে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে।

যেসব ক্ষেত্রে নাক বন্ধ হওয়া,নাক ডাকা,ক্রমাগত মুখ দিয়ে শ্বাস নেওয়ার মতো অ্যাডিনয়েড সম্পর্কিত উপসর্গ দেখা যায়, তাহলে একজন ইএনটি বিশেষজ্ঞকে দেখা উচিত্‍।শারীরিক পরীক্ষা এবং ডায়াগনস্টিক পরীক্ষা চিকিত্‍সায় অনেক সাহায্য করে।ঔষধ এবং ন্যাজাল স্প্রে উপসর্গ কমাতে ব্যবহার করা যেতে পারে।অথবা গুরুতর ক্ষেত্রে,অ্যাডিনয়েড অপসারণের জন্য অস্ত্রোপচার করা যেতে পারে।

এছাড়া পরিবর্তিত আবহাওয়ার প্রভাবে অ্যাডিনয়েডের সমস্যা যে বাড়তে পারে সে বিষয়ে অভিভাবকদের সচেতন করতে হবে এবং আবহাওয়া অনুযায়ী পরিকল্পনা করে শিশুদের অনেক সমস্যা থেকে বাঁচিয়ে তাদের জীবনকে উন্নত করা যেতে পারে। চিকিত্‍সক,অভিভাবক ও শিক্ষাবিদদের মধ্যে সমন্বয় সৃষ্টি করে এমন পরিবেশ তৈরি করা যেতে পারে যাতে শিশুদের স্বাস্থ্য বজায় রাখা যায় এবং তাদের ওপর পরিবর্তনশীল আবহাওয়ার প্রভাব কমানো যায়।

অ্যাডিনয়েড আক্রান্ত শিশুদের উপর আবহাওয়া পরিবর্তনের প্রভাবকে অবমূল্যায়ন করা যায় না।পরিবেশগত এবং শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত স্বাস্থ্য সংক্রান্ত উদ্বেগের পরিপ্রেক্ষিতে এমন পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে যাতে পরিবর্তনশীল আবহাওয়ার মধ্যেও শিশুরা সমস্যার সম্মুখীন না হয়।আসুন আমরা একসাথে পরবর্তী প্রজন্মের জন্য একটি সুস্থ ভবিষ্যত তৈরি করার চেষ্টা করি।