৩০ মে ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ১২:১২:২৯ পূর্বাহ্ন


প্রাথমিকে গুচ্ছ নিয়োগ: এক বছরের মধ্যে পরীক্ষা-চূড়ান্ত ফল
অনলাইন ডেস্ক :
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৫-০৩-২০২৩
প্রাথমিকে গুচ্ছ নিয়োগ: এক বছরের মধ্যে পরীক্ষা-চূড়ান্ত ফল প্রাথমিকে গুচ্ছ নিয়োগ: এক বছরের মধ্যে পরীক্ষা-চূড়ান্ত ফল


সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে বিভাগ ধরে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের (ডিপিই) কর্মপরিকল্পনা-সংক্রান্ত নথি থেকে জানা গেছে, গুচ্ছভিত্তিক নিয়োগ হওয়ায় এবারই প্রথম সারা দেশে একযোগে নিয়োগ পরীক্ষা ও ফল প্রকাশ করা হবে না। মোট তিন গুচ্ছে এ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। আগামী মে মাসে প্রথম গুচ্ছের লিখিত পরীক্ষা দিয়ে শুরু হবে। আর ২০২৪ সালের ফেব্রুয়ারি নাগাদ সর্বশেষ গুচ্ছের চূড়ান্ত ফলাফল দিয়ে শেষ হবে এই প্রক্রিয়া।

এই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে দেশের আট বিভাগকে মোট তিনটি গুচ্ছে ভাগ করা হয়েছে। প্রথম গুচ্ছে রয়েছে রংপুর, বরিশাল ও সিলেট বিভাগ। দ্বিতীয় গুচ্ছে খুলনা, ময়মনসিংহ ও রাজশাহী বিভাগ। আর তৃতীয় গুচ্ছে ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগ।

প্রথম গুচ্ছের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি (রংপুর, বরিশাল ও সিলেট) ইতিমধ্যে প্রকাশ করা হয়েছে। আর বাকি দুই গুচ্ছের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি চলতি মাসেই প্রকাশ করার কথা রয়েছে। এ বিষয়ে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি এক সংবাদ সম্মেলনে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব ফরিদ আহাম্মদ বলেছিলেন, ‘আগামী দুই সপ্তাহে আরও দুটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।’

ডিপিই সূত্র জানায়, এখন পর্যন্ত নিয়োগের জন্য আট বিভাগের অনুমোদিত শূন্য পদের সংখ্যা ৭ হাজার ৪৬৩। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশির ঢাকা বিভাগে, ১ হাজার ৩৬৫ আর সবচেয়ে কম সিলেট বিভাগে, ৪১১টি। এ ছাড়া বরিশালে ৮৭১, রংপুরে ৯৮৮, খুলনায় ৯৪০, ময়মনসিংহে ৫৯৯, রাজশাহীতে ১ হাজার ৫৮ এবং চট্টগ্রামে ১ হাজার ২৩১টি। তবে শূন্য পদের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ডিপিই সূত্র জানিয়েছে। কারণ হিসেবে নিয়োগ কার্যক্রম চলাকালে আরও অনেক শিক্ষকের অবসরে যাওয়ার কথা জানান তিনি। প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে অবশ্য শূন্য পদের সংখ্যা উল্লেখ করা হয়নি।

সর্বশেষ ২০২০ সালের ২০ অক্টোবর সহকারী শিক্ষকের ৩২ হাজার ৫৭৭টি শূন্য পদে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। দুই বছরের বেশি সময় পর সেই নিয়োগ শেষ হয় গত জানুয়ারিতে। এতে ৩৭ হাজার ৫৭৪ জন প্রার্থী সহকারী শিক্ষক পদে নির্বাচিত হন। তবে এর মধ্যে ২ হাজার ৫৫৭ জন চাকরিতে যোগ দেননি। ফলে এ পদগুলো শূন্য থেকে যায়।