৩০ মে ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ০১:০৮:১০ পূর্বাহ্ন


ঘুস লেনদেনের কথোপকথনটি ওসি মাহবুবুলেরই: তদন্ত প্রতিবেদন
নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৩-১০-২০২৩
ঘুস লেনদেনের কথোপকথনটি ওসি মাহবুবুলেরই: তদন্ত প্রতিবেদন ছবি: সংগৃহীত


রাজশাহীর চারঘাট মডেল থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুবুল আলমের ঘুষ লেনদেনের ফাঁস হওয়া অডিও রেকর্ডটি সত্য বলে প্রমাণিত হয়েছে। সোমবার (২ অক্টোবর) কমিটির জমা দেওয়া তদন্ত প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে এসেছে।

মঙ্গলবার (৩ অক্টোবর) রাজশাহীর পুলিশ সুপার সাইফুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, রাজশাহীর চারঘাট থানার সাবেক ওসি মাহবুবুল আলমের আলোচিত ৬ মিনিট ৫৩ সেকেন্ডের অডিও রেকর্ডটি তারই। পুলিশের তদন্তে এটি প্রমাণিত হয়েছে। সোমবার তদন্ত প্রতিবেদন পেয়েছি। এটা ওসিরই কথোপকথন ছিল।

পুলিশ সুপার আরও বলেন, ওসির বক্তব্যটি প্রমাণ হয়েছে। এখন তদন্ত প্রতিবেদন রাজশাহীর ডিআইজিকে দিয়েছি। যেহেতু অফিসারদের ক্ষেত্রে পুলিশ সদর দপ্তর ব্যবস্থা নেবে। তাই প্রতিবেদন সেখানে পাঠানো হবে। তারা পরবর্তী ব্যবস্থা নেবে।

এর আগে ১৬ সেপ্টেম্বর ওসি মাহবুবুল আলমের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপারের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দেন সাহারা খাতুন (২৮) নামে এক নারী। এর সঙ্গে ঘুস চাওয়ার ৬ মিনিট ৫৩ সেকেন্ডের কথোপকথনের একটি রেকর্ডও সংযুক্ত করা হয়। ওই দিন সন্ধ্যার পর থেকে অডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এরপর ওসি মাহবুবুলকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়।

এ ঘটনায় ১৭ সেপ্টেম্বর তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি করে দেন পুলিশ সুপার। কমিটিকে পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়। পরে কমিটির আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আরও পাঁচ দিনের সময় দেন পুলিশ সুপার।

তদন্ত কমিটি ৪০ জনের বেশি মানুষের সাক্ষাৎকার নিয়েছে। এর মধ্যে অভিযোগকারী সাহারা খাতুন, ওসি মাহবুবুল, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রুবেল অন্যতম। সাক্ষাৎকারে অভিযোগকারী নারী পুরো ১ ঘণ্টা ৪৫ মিনিটের অডিও রেকর্ড পুলিশের কাছে জমা দেন।

ফাঁস হওয়া ওই অডিও রেকর্ডে ওসি মাহবুবুল আলমকে বলতে শোনা যায়, ‘নির্বাচন করতে মন্ত্রী আমাকে গাইবান্ধা থেকে এখানে নিয়ে এসেছেন। আমি তার কথা ছাড়া কারও কথা শুনি না।’ চারঘাট এলাকায় গিয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের ধরে মামলা দেওয়ার কারণে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসির সমালোচনা করেন তিনি। এরপর বলেন, ‘দুই লাখ টাকা দেন, কালকেই ডিবির ওসিকে বদলি করে দেবো।’

সাহারা বেগমকে বলেন, ‘আপনার স্বামী আমার অনেক ক্ষতি করে গেছে (ওসির বিরুদ্ধে এসপি অফিসে অভিযোগ করেছিলেন)। এবার আপনার পরিবারের কাউকে ধরলে ১০ লাখ টাকার কমে ছাড়াতে পারব না।’

এরপর ওসি বলেন, ‘এখনো তোমার গায়ে আঁচড় দেইনি। বহুত ফাঁকি দিয়েছ। কালকে ৫ লাখ টাকা নিয়ে আসবা। এখন সেরকম সময় নয় যে কেউ পয়সা খায় না। সবাই পয়সা খাচ্ছে। এমন কেউ বাদ নেই যে পয়সা খাচ্ছে না। পুরো জেলা পয়সা খাচ্ছে। এখানে আমার থানা চালাতে মাসিক অনেক টাকা লাগছে। আমি স্যারকে কথা দিয়ে এসেছি। স্যারকে বলেছি, এখানে মাদক ছাড়া কিছু নেই।

‘মুক্তা (চারঘাটের মাদক সম্রাট নামে পরিচিত) অ্যাকশন নিতে পারবে না, শুভ (ছাত্রলীগ নেতা ও মাদক কারবারি) অ্যাকশন নিতে পারবে না। তোমরা ৫ লাখ টাকা দিতে পারবা? ধরে ওদের চালান দিয়ে দেব। থাকি না থাকি ওদের সাইজ করব। তোমরা বাইরে থেকে ব্যবসা (মাদক ব্যবসা) করবে।’

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি আতিকুর রেজা সরকার আতিকের আবারও সমালোচনা করে ওসিকে বলতে শোনা যায়, ‘নির্বাচনের আগে শুভকে ধরতে পারবো না। কথা সব ভেঙে বলবো না। কথা সব হয়ে গেলো যদি আতিকের বদলি চাও ২ লাখ টাকা দাও। কালকেই আতিকের বদলি হয়ে যাবে।’

ওসিকে আরও বলেন, ‘৫ লাখ আর ২ লাখ মোট ৭ লাখ টাকা দিয়ে ব্যবসা শুরু করো। আতিক বাদ, ওই দুইজনকে (মুক্তা ও শুভ) ট্যাকেল দেওয়ার দায়িত্ব আমার। নির্বাচন হয়ে যাওয়ার পরে মন্ত্রীকে বলে ওই দুজনকে ধরে অ্যারেস্ট করে চালান করে দেবো। আমার সব ওপরের লাইন। যে টাকা দিবা এই টাকাই ওপরে কাজ করবে।’

অডিওতে গৃহবধূ সাহারা বেগমের ‘সুন্দর চেহারা’ নিয়েও মন্তব্য করতে শোনা যায় ওসিকে।