০৫ মার্চ ২০২৪, মঙ্গলবার, ০৩:০৯:১৭ পূর্বাহ্ন


মিয়ানমারে এক রাজ্যের রাজধানী দখলের পথে বিদ্রোহীরা
আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
  • আপডেট করা হয়েছে : ০২-১২-২০২৩
মিয়ানমারে এক রাজ্যের রাজধানী দখলের পথে বিদ্রোহীরা মিয়ানমারে এক রাজ্যের রাজধানী দখলের পথে বিদ্রোহীরা


মিয়ানমারে জান্তা বাহিনীর নিয়ন্ত্রণ থেকে কায়াহ রাজ্যের রাজধানী লোইকাওয়ের দখল নিতে এগিয়ে যাচ্ছে গণতন্ত্রপন্থী বিদ্রোহীরা। তারা লোইকাও দখল করতে পারলে এটি হবে প্রথম কোনো রাজ্যের রাজধানী, যা বিদ্রোহীদের দখলে যাবে। তবে জান্তা বাহিনীর প্রধান জানিয়েছেন, রাজধানী এখনো তাদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

মিয়ানমারের জান্তাবিরোধী জাতীয় ঐক্যের সরকারের নিয়ন্ত্রণাধীন পিপলস ডিফেন্স ফোর্স (পিডিএফ) ও দেশটির বিভিন্ন নৃগোষ্ঠীর সশস্ত্র অংশের সমন্বয়ে গঠিত এথনিক আর্মড অর্গানাইজেশনসের (ইএওএস) সৈন্যরা লোইকাওয়ের দখল নিতে এগিয়ে যাচ্ছে। তাদের নেতা লিন লিন বলেন, ‘আমাদের সৈন্যরা প্রায় সবাই লোইকাও শহরের এবং এটিই মূলত আমাদের শহরটির দখল নিতে উদ্বুদ্ধ করছে। আমরা আমাদের আবাসস্থল ফেরত পেতে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’

বিগত কয়েক সপ্তাহ ধরেই পিডিএফ ও ইএওএসের সৈন্যরা লোইকাওয়ের দখল নিতে জান্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। পর্বতবেষ্টিত এই শহরে প্রায় ৫০ হাজার বাসিন্দা রয়েছে। তবে পিডিএফ যোদ্ধারা জানিয়েছে, জান্তা বাহিনীর নির্বিচার বিমান হামলা এবং শহরের বিভিন্ন অঞ্চলে যুদ্ধের কারণে শহরটির বেশির ভাগ বাসিন্দাই পালিয়ে গেছে।

এদিকে বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলো লোইকাও দখলে এগিয়ে যাওয়ার দাবি করলেও মিয়ানমারের জান্তা সরকারের প্রধান মিন অং হ্লাইং গত বুধবার দাবি করেছেন, লোইকাওয়ে সরকারি সৈন্যরা ‘ব্যাপক শক্তিমত্তা দেখিয়েছে।’ তিনি জানিয়েছেন, কয়েক সপ্তাহব্যাপী যুদ্ধের পরও লোইকাওয়ের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

অন্যদিকে লোইকাওয়ে তীব্র যুদ্ধের কারণে শহরটি থেকে জাতিসংঘের কর্মকর্তাদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। জাতিসংঘ জানিয়েছে, মূলত ব্যাপক বিমান হামলা ও শহরের ভেতরে তুমুল লড়াইয়ের কারণে তাদের নিরাপত্তাজনিত কারণে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।