০৫ মার্চ ২০২৪, মঙ্গলবার, ০৪:০৭:৩২ পূর্বাহ্ন


রাশিয়ায় সমপ্রেমীরা এবার 'সন্ত্রাসবাদী'!
আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
  • আপডেট করা হয়েছে : ০১-১২-২০২৩
রাশিয়ায় সমপ্রেমীরা এবার 'সন্ত্রাসবাদী'! রাশিয়ায় সমপ্রেমীরা এবার 'সন্ত্রাসবাদী'!


রাশিয়ার সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছে  কর্মীদের ‘চরমপন্থী’ হিসাবে মনোনীত করা উচিত। এই রায় এমন একটি পদক্ষেপে যে সমকামী এবং ট্রান্সজেন্ডার মানুষদের গ্রেফতারের পথ প্রশস্ত করবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আদালত বৃহস্পতিবার রায় দিয়েছে ‘আন্তর্জাতিক এলজিবিটি জনসাধারণের আন্দোলন এবং এর উপবিভাগগুলি’ চরমপন্থী এবং ‘রাশিয়ার ভূখণ্ডে এর কার্যক্রমের উপর নিষেধাজ্ঞা’ জারি করেছে।

এই পদক্ষেপটি রাশিয়ায় অধিকারের উপর দশকব্যাপী ক্র্যাকডাউনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে কঠোর পদক্ষেপ বলে মনে করা হচ্ছে। এই ক্র্যাকডাউন রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিনের অধীনে অত্যধিক বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি নিজের শাসনের ভিত্তিপ্রস্তর হিসেবে ‘ঐতিহ্যগত পারিবারিক মূল্যবোধ’-এর কহা বার বার তুলে ধরেছেন।

বিচারক বলেছেন, রায়টি অবিলম্বে কার্যকর হবে। পাশপাশি কোনও নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা সংস্থা এতে প্রভাবিত হবে কিনা তা তিনি নির্দিষ্ট করেনি।

রুশ মিডিয়া রায়ের আগে রিপোর্ট করেছে শুনানি বন্ধ দরজার পিছনে হয়েছে এবং কোনও বিবাদি পক্ষ সেখানে উপস্থিত ছিল না। যদিও সাংবাদিকদের সিদ্ধান্ত শোনার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।

পুতিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ আদালতের সিদ্ধান্ত ঘোষণার আগে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ক্রেমলিন এই মামলাটি ‘অনুসরণ করছে না’ এবং এটি নিয়ে কোনও মন্তব্য নেই তাদের।

নারীবাদী যুদ্ধবিরোধী প্রতিরোধ, যা ইউক্রেনে রাশিয়ার যুদ্ধের সমালোচনা করে তাঁরা এই রায়ের প্রতিক্রিয়ায় সোশ্যাল মিডিয়ায় বলেছে, ‘একদিন, এটি শেষ হয়ে যাবে কিন্তু আপাতত, আমাদের বাঁচতে এবং নিজেদের বাঁচানোর চেষ্টা করতে হবে’।

ট্রান্সজেন্ডার অধিকার গ্রুপ ‘সেন্টার টি’ সহ অন্যান্য এনজিও-গুলি বলেছে যে তারা এলজিবিটিকিউ সম্প্রদায়ের সদস্যদের জন্য সুরক্ষা নির্দেশিকা প্রকাশ করবে।

‘সেন্টার টি’-র পরিচালক, ইয়ান ডভোরকিন, নিরাপত্তার সমস্যার কারণে রাশিয়া থেকে পালিয়ে গেছে। তিনি এই আইনি প্রক্রিয়াটিকে ‘ইন্সেনিটির নতুন লো পয়েন্ট’ বলে অভিহিত করেছেন।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এই রায়কে ‘লজ্জাজনক এবং অযৌক্তিক’ বলে অভিহিত করেছে। তারা একটি বিবৃতিতে সতর্ক করেছে যে এটি সব LGBTQ সংস্থাগুলির উপর নিষেধাজ্ঞার কারণ হতে পারে এবং আলোচনা, মতপ্রকাশ এবং শান্তিপূর্ণ সমাবেশের স্বাধীনতা লঙ্ঘন করতে পারে। পাশাপাশি এই রায় এলজিবিটিকিউ সম্প্রদায়ের মানুষের প্রতি বৈষম্য তৈরি করতে পারে।

গত বছর ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসন শুরুর পর থেকে উদারপন্থী গোষ্ঠীগুলির বিরুদ্ধে মস্কোর ক্র্যাকডাউন তীব্র হয়েছে। এরপরেই দেশের LBGTQ সম্প্রদায় তাদের অধিকারকে ক্রমাগত হ্রাস পেতে দেখেছে।

সেই সময় থেকেই ক্রেমলিন ‘ঐতিহ্যবাহি মূল্যবোধ’কে পাশ্চাত্যের ‘অপমানজনক’ প্রভাব থেকে রক্ষা করার বিষয়ে তার বক্তব্য বাড়িয়েছে।

ডভোরকিন বলেছিলেন, তিনি বিশ্বাস করেন রাশিয়ান কর্তৃপক্ষ এলজিবিটিকিউ লোকদের ‘বলির পাঁঠা’ হিসাবে ব্যবহার করছে।

তিনি বলেন, ‘তারা যুদ্ধে হেরে যাচ্ছে। এতে জনগণ সরকারের প্রতি খুবই হতাশ ও অসন্তুষ্ট। এলজিবিটিকিউ লোকেদের উপর সেই রাগ বের করা খুব সহজ’।

জুলাই মাসে, আইন প্রণেতারা লিঙ্গ রিঅ্যাসাইগ্নমেন্টকে বেআইনি করে এর চিকিৎসা এবং প্রশাসনিক পদ্ধতি নিষিদ্ধ করেছিলেন।

আইন প্রণেতা পিয়োতোর টলস্টয় সেই সময়ে বলেছিলেন যে এই ব্যবস্থাটি ছিল ‘পশ্চিমী পরিবার-বিরোধী মতাদর্শের অনুপ্রবেশে একটি বাধা’।

গত নভেম্বরে, আইনপ্রণেতারা একটি বিলও অনুমোদন করেছেন যেটি সমস্ত ধরণের ‘প্রচার’ নিষিদ্ধ করেছে। এটি বিভিন্ন বই প্রকাশ এবং চলচ্চিত্রের উপর সুদূরপ্রসারী পরিণতি ডেকে আনবে।

৪৯টি ইউরোপীয় দেশের মধ্যে, রেইনবো ইউরোপ সংস্থা এলজিবিটিকিউ জনগণের প্রতি সহনশীলতার পরিপ্রেক্ষিতে রাশিয়াকে নীচে থেকে তৃতীয় স্থানে রেখেছে।