২৮ মার্চ ২০২৩, মঙ্গলবার, ০২:৩৪:১৬ অপরাহ্ন


পাবনায় ভায়রার ভাইয়ের লাঠির আঘাতে যুবকের মৃত্যু
আরিফুল ইসলাম প্রিন্স :
  • আপডেট করা হয়েছে : ০২-০৩-২০২৩
পাবনায় ভায়রার ভাইয়ের লাঠির আঘাতে যুবকের মৃত্যু পাবনায় ভায়রার ভাইয়ের লাঠির আঘাতে যুবকের মৃত্যু


পাবনার বেড়ায় আত্মীয়স্বজনের মধ্যে সামান্য ঘটনার জেরে ভায়রা ভাইয়ের লাঠির আঘাতে রঞ্জু (৩০) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। 

বুধবার সকালে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

নিহত রঞ্জু বেড়া উপেজলার নতুন ভারেঙ্গা ইউনিয়নের নতুন ভারেঙ্গা গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে। 

স্থানীয়রা ও নিহতের স্বজনরা জানান, রঞ্জুর খালাতো ভাই সুজন কয়েক মাস আগে প্রেম করে বিয়ে করেন। বিয়ের পর স্ত্রীর সঙ্গে বনিবনা না হলে উভয় পরিবারের সম্মতিতে তাদের ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। এরপর সুজন অন্যত্র বিয়েও করেন। 

কিন্তু দ্বিতীয় বিয়ের পরও সুজন তার সাবেক স্ত্রীর আত্মীয়স্বজনকে নিয়ে কটূক্তি ও হুমকি দিতে থাকেন। বিষয়টি নিয়ে সুজনের সাবেক স্ত্রীর স্বজনরা রঞ্জুর কাছে নালিশ দিলে রঞ্জু গত ২৭ ফেব্রুয়ারি তার খালাতো ভাই সুজনকে সতর্ক করেন। 

রঞ্জুর সতর্ক করার বিষয়টি সুজন তার মাকে জানালে মঙ্গলবার রঞ্জু ও সুজনের মা অর্থাৎ দুই বোনের মধ্যে ঝগড়া বাধে। এতে অপমাণিত বোধ করেন সুজন। এরই জেরে মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে আমিন ও সুজন রঞ্জুর বাড়ির কাছে রাস্তায় ওৎপেতে থাকেন। বাড়ি ফেরার পথে রঞ্জুকেপেছন থেকে লাঠি দিয়ে একটি আঘাত করেন আমিন। এতে গুরুতর আহত হয়ে জ্ঞান হারান রঞ্জু। 

স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। কিন্তু গভীর রাতে তার অবস্থার অবনতি হলে সেখান থেকে ২৫০ শয্যার পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার সকালে রঞ্জু মারা যান। 

বেড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আসাদুজ্জামান জানান, নিকটতম আত্মীয়-স্বজনের মধ্যে সামান্য ঘটনার জেরে এ হত্যাকা- ঘটেছে। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও জানায় ওসি।