ঢাকা মঙ্গলবার, মে ১৮, ২০২১
২৩ মে খুলবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান?
  • Rajshahir Somoy Desk
  • ২০২১-০৪-২৮ ১৩:১২:৫২
ফাইল ফটো

রাজশাহীর সময় ডেস্ক: বিশ্বজুড়ে ভয়াবহ তাণ্ডব চালানো করোনা ভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণে সবকিছুতেই একটা নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। ইদের পরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়েও দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আগে দেশের সব শিক্ষক-কর্মচারী এবং বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের টিকার আওতায় আনার কথা ছিল। কিন্তু টিকার অভাবে সেটি এখন আর সম্ভব হচ্ছে না। ফলে ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী ২৩ মে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার উপায় নেই বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একাধিক সূত্রের দাবি, সারাদেশের সব শিক্ষক, কর্মচারী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের এক লাখ ৩০ হাজার আবাসিক শিক্ষার্থীর টিকা গ্রহণ নিশ্চিত করে আগামী ২৩ মে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিল সরকার। কিন্তু করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে ভারত টিকা রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। এতে টিকা সংকটে পড়েছে দেশ। ফলে বিকল্প উৎস থেকে টিকা সংগ্রহের চেষ্টা করছে সরকার। এরই অংশ হিসেবে মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) বাংলাদেশে রাশিয়ার তৈরি ‘স্পুটনিক ফাইভ’ টিকা জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া হয়। কিন্তু মে মাসের মধ্যে এ সংকট কাটিয়ে ওঠা যাবে কি না, তা নিয়ে শঙ্কা রয়েছে।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শিক্ষার্থীদের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) না থাকায় তাদের টিকার আওতায় আনা যাচ্ছে না। আর করোনা সংক্রমণ সহসাই থামছে না বলেও বিশেষজ্ঞরা ইঙ্গিত দিচ্ছেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের (মাউশি) সচিব মো. মাহবুব হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘করোনার পরিস্থিতি কেমন, তা তো সবাই দেখছেন। এ অবস্থায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে কী করা যাবে তা এ মুহূর্তে বলা মুশকিল। তবে ২৩ মে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত এখন পর্যন্ত পরিবর্তন হয়নি। করোনার সার্বিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত নেব।’

করোনার কারণে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। কয়েক দফায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দিলেও পরিস্থিতি বিবেচনা করে শেষ পর্যন্ত আর খোলা হয়নি। সবশেষ ঘোষণা অনুযায়ী, ইদের পরে আগামী ২৩ মে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার কথা রয়েছে। কিন্তু এরই মধ্যে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে। এটি সামাল দিতে সরকার সারাদেশে বিধিনিষেধের মাধ্যমে লকডাউন দিয়ে আসছে গত ৫ এপ্রিল থেকে। যা আগামী ৫ মে মধ্যরাত পর্যন্ত বহাল রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এরপর এ বিধিনিষেধ আরও বাড়তে পারে বলেও বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।

এ দিকে, চলমান বিধিনিষেধ শিথিল করলে বা পুরোপুরি তুলে নেওয়া হলে মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে দৈনিক করোনা সংক্রমণ বর্তমান সময়ের তুলনায় দ্বিগুণ হতে পারে বলে সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা। এপিডেমিওলজিক্যাল প্রজেকশন মডেলিংয়ের ওপর ভিত্তি করে এমন পূর্বাভাস দিয়েছেন তারা। এই কনসোর্টিয়াম গঠিত হয়েছে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড ও কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকসহ ৪০টি দেশের সংক্রামক ব্যাধি বিষয়ক মডেলারস ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে।

তাদের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, বর্তমানে যে হারে সংক্রমণ কমছে এর ধারা আগামী মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত থাকতে পারে। তবে ইদে মানুষের চলাচল বেড়ে গেলে পরবর্তী সপ্তাহগুলোতে সংক্রমণ বাড়তে পারে। এছাড়া জুনের তৃতীয় সপ্তাহে যা সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছাতে পারে।

এ প্রসঙ্গে কোভিড-১৯ ইন্টারন্যাশনাল মডেলিং কনসোর্টিয়ামের সদস্য শাফিউন শিমুল বলেন, ‘গত কিছুদিন ধরে সংক্রমণের হার কমছে। চলাচলে বিধিনিষেধ থাকায় মে মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত সংক্রমণের এই হার একই রকম থাকবে। তবে ইদে চলাচল বাড়বে, ফলে সংক্রমণের হার আবার ঊর্ধ্বমুখী হতে পারে।’

এ দিকে, বিশেষজ্ঞদের তথ্যানুযায়ী, ২৩ মে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা সম্ভব হচ্ছে না। কবে খুলবে তাও কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না। সবকিছুই পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করছে।

আরও পড়ুন : ঢাবি অধিভুক্ত মেডিকেলের তৃতীয় প্রফের ফল প্রকাশ

অন্যদিকে, টিকা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের (মাউশি) সচিব মো. মাহবুব হোসেন বলেন, ‘শিক্ষকদের মধ্যে অধিকাংশই টিকা নিয়েছেন। যারা বাকি আছেন, তাদের বিষয়ে সরকার কনসার্ন (মনযোগী)। যারা প্রথম ডোজ নিয়েছেন, তাদের দ্বিতীয় ডোজ নিতে কোনো সমস্যার হওয়ার কথা নয়। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে এক লাখ ৩০ হাজার শিক্ষার্থীর সবাইকে টিকা দিতে পারিনি। কারণ সবার এনআইডি নেই। কতজন শিক্ষার্থী টিকা নিয়েছে সে তথ্য আমার কাছে এই মুহূর্তে নেই।’

বিষয়টিতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামান গণমাধ্যমকে বলেন, ‘এ বিষয়ে আমাদের কাছে কোনো তথ্য নেই। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো অফিসিয়ালি আমাদের জানায়নি। তবে শুরু করেছে জেনেছি। পর্যায়ক্রমে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো টিকা দিচ্ছে। সরকার শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দেবে। ৯০ শতাংশ শিক্ষককে টিকার প্রথম ডোজ দেওয়া শেষ হয়েছে বলে জেনেছি।’

রাজশাহীর সময় / এফ কে

প্রশিক্ষণের টাকা পাচ্ছেন না প্রাথমিকের ২১ হাজার শিক্ষক
দৃষ্টান্ত স্থাপন করল রাজশাহীর অগ্রণী স্কুল ও কলেজ
প্রাথমিক-মাধ্যমিকের ৪৪ শতাংশ শিক্ষার্থী পড়াশোনার বাইরে