ঢাকা বুধবার, এপ্রিল ১৪, ২০২১
পরিবেশ উন্নয়ন ও সুরক্ষায় বিশ্বব্যাংকের অর্থ চায় সরকার
  • Rajshahir Somoy Desk
  • ২০২১-০৪-০৬ ১৯:০১:৪৭
ফাইল ফটো

রাজশাহীর সময় ডেস্ক: জলবায়ু পরিবর্তনের প্রেক্ষাপটে পরিবেশগত উন্নয়ন ও সুরক্ষা নিশ্চিতের জন্য প্রস্তাবিত ‘ইকোলজিক্যাল রেস্টোরেশন সাপোর্ট টু রিভার্স অ্যান্ড ক্যানালস অ্যারাউন্ড ঢাকা’ প্রকল্পে পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন; পরিবহন; নদী কেন্দ্রিক পর্যটনের উন্নয়নে টেকসই পরিবেশ-বান্ধব অবকাঠামো তৈরিসহ এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠায় আর্থিক সহযোগিতার জন্য বিশ্বব্যাংককে অনুরোধ জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। 

পাশাপাশি কর্মক্ষেত্রে নারীদের অংশগ্রহণ আরও বেশি বৃদ্ধির জন্য ছাত্রীদের প্রযুক্তিগত ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা প্রকল্পে এবং করোনার প্রভাব মোকাবিলায় বাজেট সাপোর্ট হিসাবে পাঁচশ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সহযোগিতার জন্য আহ্ববান জানান তিনি।

বিশ্ব ব্যাংক-আইএমএফ এর বসন্তকালীন সভা ২০২১ এর অংশ হিসেবে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মু্স্তফা কামালের নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল ও বিশ্ব ব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট হার্টউইগ শ্যেফার এর নেতৃত্বে বিশ্বব্যাংকের প্রতিনিধি দলের মধ্যে সোমবার (৫ এপ্রিল) সন্ধ্যায় একটি ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হয়। ঐ সভায় বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের সদস্য হিসাবে অর্থমন্ত্রী, অর্থসচিব ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন আলোচনায় অংশ নেন। অন্যদিকে, বিশ্বব্যাংকের পক্ষে হার্টউইগ শ্যেফার ও মার্সি মিয়াং টেম্বন আলোচনায় অংশ নেন। 

এসময় বাংলাদেশের সামগ্রিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে বিশ্বব্যাংকের অব্যাহত সহযোগিতার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন অর্থমন্ত্রী। এছাড়া, কোভিড-১৯ মহামারি মোকাবেলার লক্ষ্যে বিশ্বব্যাংকের নেওয়া দ্রুত ও সময়োযোগি বিভিন্ন উদ্যোগেরও প্রশংসা করেন তিনি। চলমান করোনা মহামারিজনিত কারণে দেশের ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমবাজার, আর্থিক ও সামাজিক খাত সচল রাখার লক্ষ্যে বর্তমান বিশ্বব্যাংকের কর্মসংস্থান উন্নয়ন সহযোগিতা ঋণ-ডিপিসি প্রকল্পের আওতায় সাপোর্ট এবং করোনার ভ্যাকসিনের জন্য পাঁচশ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থায়নের জন্যও তিনি বিশ্ব ব্যাংকের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন  করেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, করোনা মহামারির কারণে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো ক্ষতিগ্রস্ত হলেও শেখ হাসিনার বিচক্ষণ নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্থনীতি এখন কম বেশি ভালো অবস্থানে রয়েছে। এই সঙ্কটময় পরিস্থিতির শুরুতেই দেশের সবধরনের অর্থনৈতিক স্তরের মানুষের জন্য এখন পর্যন্ত এক লাখ ২৪ হাজার ৫৩ কোটি টাকার মোট ২৩টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছে।  

বাংলাদেশের সকল নাগরিকের জন্য বিনামূল্যে কোভিড-১৯ এ টিকা প্রদানের কার্যক্রম শুরুর বিষয়টিও উল্লেখ করেন তিনি। 

এসময় বাংলাদেশের দেওয়া প্রস্তাবগুলো ইতিবাচকভাবে নিয়ে তা বাস্তবায়নে পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দেন বিশ্বব্যাংকের প্রতিনিধি দল।

রাজশাহীর সময় / এফ কে

সেঞ্চুরির কাছাকাছি শসা, টমেটো-বেগুনের দামও চড়া
বিশেষ প্রয়োজনে খোলা রাখা যাবে ব্যাংক : মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ
টিকা কিনতে ৫০ কোটি ডলার দিতে সম্মত বিশ্বব্যাংক