বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ০৩:২৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
সহস্র হৃদয়ের ভালবাসায় সিক্ত হলেন, জননেতা ফজলে হোসেন বাদশা রাজশাহী নগরীতে প্রিমিয়ার লীগের নারী ক্রিকেটার ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার রাজশাহীতে তারেক রহমানের ৫৪ তম জন্মদিন ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত  শিবগঞ্জে এতিমদের অর্থ সহায়তা প্রদান ও শেখ রাসেল পুনর্বাসন কেন্দ্রের উদ্বোধন  তারেক রহমানের ৫৪ তম জন্মদিন পালন করলো রাবি ছাত্রদল নৌসম্পদকে কেন্দ্র করে এগিয়ে যাচ্ছে দেশের জাহাজ নির্মাণ শিল্প ডিজিটাল বাংলাদেশের সুবিধা নিচ্ছেন তারেকও! যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানদের নমিনেশন প্রদান, লাঞ্ছিত হলেন মির্জা ফখরুল রাজশাহীতে ২৫ বোতল ফেন্সিডিল জব্দ, আসামীর নাম বাদ দিয়ে ১৫ বোতলের মামলা দিলো বিজিবি আন্তর্জাতিক হিজড়া দিবস উপলক্ষে নগরীতে হিজড়াদের র‌্যালী
প্রধানমন্ত্রীর কাছে ‘ক্লিন বোল্ড’ মওদুদ

প্রধানমন্ত্রীর কাছে ‘ক্লিন বোল্ড’ মওদুদ

রাজশাহীর সময় ডেস্ক : ক্লিন বোল্ড হয়ে ভগ্ন মনোরথেই গণভবন থেকে বের হয়েছেন পল্টিবাজিকে শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া মওদুদ। নোংরামী ও মিথ্যাচারের জন্য রাজনীতিতে কোন পুরষ্কার চালু হলে তা অবশ্য মওদুদের হাতছাড়া হবে না।

কিন্তু গণভবনের ভরা মজলিশে নিজের মিথ্যাচারকে প্রতিষ্ঠিত করার সুযোগ হাতছাড়া হয়ে গেছে তার। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সরাসরি ‘ক্লিন বোল্ড’ করে দিয়েছেন এই দুধের মাছিকে।

ঘটনার সূত্রপাত গত ১ নভেম্বরে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে ঐক্যফ্রন্টের প্রতিনিধিদলের সদস্য হয়ে সংলাপে যান মওদুদ। অবশ্য যুক্তিসঙ্গত সংলাপের স্থলে প্রলাপ ও খানাপিনা পেটে চালানের কার্যকলাপেই উৎসাহী ছিলো তথাকথিত প্রতিনিধি দলের মোড়কে আসা তারেকের অধীনস্থ দল।

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার সন্তান আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুতে তাকে সমবেদনা জানাতে তার বাসভবনে গিয়েছিলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সেদিনের প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী মওদুদকে বলেন, ‘আপনি বারান্দায় দাঁড়িয়ে ছিলেন, কিন্তু গেট খোলার ব্যাপারে কিছু বলেননি।’ মওদুদ বলেন, ‘আমি যে রুমে ছিলাম, সেখানে বারান্দা ছিল না।’

তখন মওদুদ বলেন, ‘আমি সেখানে ছিলাম না।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গেটের ফাকঁ দিয়ে আমি আপনাকে দেখেছি।’ মওদুদ বলেন, ‘আমি উপরে ছিলাম।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনি বারান্দায় দাঁড়িয়ে ছিলেন, কিন্তু গেট খোলার ব্যাপারে কিছু বলেননি। মওদুদ বলেন, আমি যে রুমে ছিলাম, সেখানে বারান্দা ছিল না। বিষয়টি নিয়ে বিতর্কের ফলে মওদুদ বিব্রত হয়ে পড়েন।

যদিও রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের ধারণা দলের হাইকমান্ডের নির্দেশেই সেদিন প্রধানমন্ত্রীকে দেখেও গেট খোলার ব্যবস্থা করেননি মওদুদ। মওদুদ তথা বিএনপির এমন শিষ্ঠাচার বহিঃর্ভুত আচরণে নিন্দার ঝড় উঠে দেশে বিদেশে সর্বত্র।

বিএনপি-জামায়াত সন্ত্রাসীদের গ্রেনেড-বোমায় জর্জরিত আওয়ামী লীগ নেত্রীর এই উদারতা সারাবিশ্বেই প্রশংসা পেয়েছে। অন্যদিকে খালেদা জিয়ার স্বভাবসুলভ দুর্ব্যবহার, অতিথিকে বাড়িতে ঢুকতে না দিয়ে গেইটের সামনে দীর্ঘক্ষণ দাঁড় করিয়ে রাখার বিস্ময়কর দৃশ্যে নিন্দার ঝড় ওঠে সর্বত্র। একজন সন্তানহারা মায়ের ব্যবহার এমন হতে পারে কিনা, সে প্রশ্ন তুলতে থাকেন সকল বিবেকবান মানুষ। সেইসাথে জিয়া পরিবারের অসংখ্য অপকর্ম থাকা স্বত্বেও বঙ্গবন্ধুকন্যার এই উদারতা ও মানবতার উদাহরণে ‘জয় জয়’ রব ওঠে সর্বত্র।

স্বভাবজাত মিথ্যাচার দিয়ে নিজের অসভ্যতা ঢাকতে চাইলেও প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ়তায় তা ধোপে টেকেনি। শেষমেষ মাথা নিচু করেই সংলাপস্থল থেকে বের হন মওদুদ।সূত্র: বাংলা আমার

রাজশাহীর সময় ডট কম ০৪ নভেম্বর, ২০১৮





© All rights reserved © 2018 rajshahirsomoy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com