বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ০৩:১৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
সহস্র হৃদয়ের ভালবাসায় সিক্ত হলেন, জননেতা ফজলে হোসেন বাদশা রাজশাহী নগরীতে প্রিমিয়ার লীগের নারী ক্রিকেটার ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার রাজশাহীতে তারেক রহমানের ৫৪ তম জন্মদিন ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত  শিবগঞ্জে এতিমদের অর্থ সহায়তা প্রদান ও শেখ রাসেল পুনর্বাসন কেন্দ্রের উদ্বোধন  তারেক রহমানের ৫৪ তম জন্মদিন পালন করলো রাবি ছাত্রদল নৌসম্পদকে কেন্দ্র করে এগিয়ে যাচ্ছে দেশের জাহাজ নির্মাণ শিল্প ডিজিটাল বাংলাদেশের সুবিধা নিচ্ছেন তারেকও! যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানদের নমিনেশন প্রদান, লাঞ্ছিত হলেন মির্জা ফখরুল রাজশাহীতে ২৫ বোতল ফেন্সিডিল জব্দ, আসামীর নাম বাদ দিয়ে ১৫ বোতলের মামলা দিলো বিজিবি আন্তর্জাতিক হিজড়া দিবস উপলক্ষে নগরীতে হিজড়াদের র‌্যালী
রামেক হাসপাতালে লাশ জিম্মি করে মাইক্রোবাস সিন্ডিকেটের বাণিজ্য

রামেক হাসপাতালে লাশ জিম্মি করে মাইক্রোবাস সিন্ডিকেটের বাণিজ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের জরুরী বিভাগের সামনেই পার্কিং করে রাখা থাকে ১০-১৫ টি মাইক্রোবাস। একেকটি মাইক্রোবাস যেন লক্কড়-ঝক্কড় মার্কা গরুর গাড়ী। এগুলোর ছাদের ওপরে আবার কোনো কোনেটিতে রাখা আছে জরুরী হর্ণ। যেগুলো এ্যাম্বুলেন্সে লাগানো থাকে। এই মাইক্রোবাসগুলো দাঁড়িয়ে থাকে হাসপাতালের লাশ অথবা সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যাওয়া রোগী ধরার আশায়।

বিশেষ করে কোনো রোগী হাসপাতালে মারা গেলে মাইক্রোবাস চালক বা তার সহকারীরা ছুটে যান মৃত ব্যক্তির আত্মীয় স্বজনদের কাছে। যে মাইক্রো চালক বা তার সহকারী প্রথম যে লাশের স্বজনদের সাথে কথা বলবেন, ওই লাশ আর অন্য কোনো মাইক্রোবাসে নিয়ে যেতে পারবে না। এভাবে সিন্ডিকেট করে রামেক হাসপাতালের লাশ জিম্মি করে বাণিজ্য নেমেছে একদল চালক এবং তাদের সহকারীরা।

এই সিন্ডিকেটর মূল হোতা হলেন মাইক্রোবাস মালিকরা। যাদের মধ্যে অন্যতম হলেন রাব্বুল ও জনি নামের দুই ব্যক্তি। অনুসন্ধানে

জানা গেছে, গত শুক্রবার রামেক হাসপাতালে রাত ১২টার দিকে মারা যান রাজশাহীর দূর্গাপুর উপজেলার মৌসুমি বেগম নামের এক নারী। রাজশাহী শহর থেকে দূর্গাহ গ্রামের দুরুত্ব বড় জোর ২৫ কিলোমিটার। সেই হিসেবে একটি ভালোমানের মাইক্রোবাসের ভাড়া হয় সর্বোচ্চ দুই হাজার টাকা। কিন্তু মৌসুমির লাশ বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার জন্য রামেক হাসপাতালের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা মাইক্রো সিন্ডিকেটের সদস্যরা দাবি করেন ৭ হাজার টাকা।

পরে একটি লক্কড়-ঝক্কড় মার্কা মাইক্রোবাসে করে মৌসুমি বেগমের লাশটি পৌছে দেয়া হয় দূর্গাপুরের দূর্গাহ গ্রামে। রিদ্র মৌসুমি স্বজন শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা বাইরের গাড়ীতে করে লাশ বাড়িতে আনার চেষ্টা করেছি। কিন্তু মাইক্রোবাসের সিন্ডিকেটের সদস্যরা আমাদের নানাভাবে ভয়ভীতি দেখান। ফলে বাধ্য হয় তাদের আনফিট গাড়ীতেই লাশ নিয়ে আসতে হয়েছে। কিন্তু অতিরিক্ত টাকা দিতে আমাদের হিমশিম খেতে হয়। হাসপাতালের মাইক্রোবাস সিন্ডিকেট লাশ নিয়েও যে বাণিজ্য করে, সেটি না দেখলে কখনো বিশ্বাস করতাম না।

কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার আনোয়ার হোসেন নামের এক রোগী মারা যান গত বৃহস্পতিবার (১৮ অক্টোবর)। তার লাশ কুষ্টিয়া নিতে স্বজনদের গুনতে হয় ১২ হাজার টাকা। অথচ বাইরের একটি ভালো মানের মাইক্রোবাসের ভাড়া হয় সর্বোচ্চ চার হাজার টাকা। কিন্তু সেখানে অন্তত আট হাজার টাকা বেশি আদায় করে রামেক হাসপাতালের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা মাইক্রোবাসের সিন্ডিকেটের সদস্যরা।

আনোয়ার হোসেনের স্বজন মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘প্রথমে ১৫ হাজার টাকা দাবি করেছিল সিন্ডিকেটের সদস্যরা। শেষে ১২ হাজার টাকায় রাজি হয় তারা। এরপর লাশ নিয়ে বাসায় ফিরতে পেরেছি। মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘হাসপাতালের পুলিশরাও ওই সিন্ডিকেটের সদস্যদের সঙ্গে জড়িত। তা না হলে তাদের সামনেই দর-কষাকষি করে কিভাবে মাইক্রেবাসের চালকরা। সেখানে পুলিশ কোনো সহযোগিতা করেননি।

এদিকে অনুসন্ধানে জানা গেছে, রামেক হাসপাতাল কেন্দ্রিক প্রায় ৫০টি লক্কড়-ঝক্কড় মার্কা আনফিট মাইক্রোবাস রয়েছে। যেগুলোর অধিকাংশরেই মালিক স্থানীয় রাব্বুল ও জনি নামের দুই ব্যক্তি। এই দু’জনের প্রভাবেই মাইক্রোবাস চালক ও তার লোকজনরা হাসপাতালের লাশ পরিবহনের নামে লাশ জিম্মি করে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে এই সিন্ডিকেট। ফলে তাদের দাপটের কারণে লাশ পরিবহন করার কাজে বাইরের কোনো মাইক্রোবাস রামেকে ঢুকতে পারেনা।

এ বিষয়ে মাইক্রোবাস মালিক রাব্বুলের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘কোনো সিন্ডিকেট নয়। আসলে লাশ তো সবাই পরিবহন করতে চাই না। তাই চালকদেরও বেশি টাকা দিতে হয়। এ কারণে একটু বাড়তি ভাড়া নেওয়া হয়।

জানতে চাইলে হাসপাতালের পুলিশ বক্সের ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম বলেন, এখানে আমাদের কিছু করার নাই। লাশ পরিবহনের জন্য স্বজনদের সঙ্গে লেনদের হয় হাসপাতালের বাইরে। তার পরেও আমরা চেষ্টা করি, যেন লাশ নিয়ে কেউ বাণিজ্য করতে না পারে।

তিনি আরো বলেন, অভিযোগ পেলে মাইক্রোবাস চালকদের ডেকে আমরা সতর্ক করে দেবো।

রাজশাহীর সময় ডট কম২১ অক্টোবর ২০১৮





© All rights reserved © 2018 rajshahirsomoy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com