বুধবার, ২২ মে ২০১৯, ০১:৩৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
ষড়যন্ত্র হয় ভেতর থেকেই, প্রসঙ্গ রাবিতে ভিসি পদে সাময়িক শূণ্যতা নিয়ে মিথ্যাচার, কোর্ট নোটিশ অতঃপর… ফায়ার সার্ভিস উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী যথেষ্ট আন্তরিক; রাজশাহীতে ফায়ার ডিজি রাজশাহীর মোহনপুরে ‘মানসিক প্রতিবন্ধী’ নারীর গলাকাটা লাশ উদ্ধার নিম্ন মানের চাল কেনার অভিযোগে রাজশাহীতে গোডাউন সিলগালা রাজশাহীতে স্কুলছাত্রী বর্ষা আত্মহত্যার ঘটনায় ওসি প্রত্যাহার কর্ণেল পরিচয়ধারী প্রতারক চক্রের মূল হোতা মাহবুর গ্রেফতার, রিমান্ড শেষে কারাগারে বিএনপি ক্ষমতায় থাকলে কৃষকদের এই দুরাবস্থা অবস্থা হতো না : মিনু ফুটবলকে বিদায় জানালেন জাভি হার্নান্দেজ অডিশনের জন্য অচেনা অভিনেতার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হতে হয়েছিল অদিতিকে রাজশাহী নগরীতে পুলিশের অভিযানে আটক -৩৯
যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সমঝোতার সম্ভাবনা নেই : ইরান

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সমঝোতার সম্ভাবনা নেই : ইরান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সমঝোতার সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাবেদ জারিফ। সঙ্গে এও বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের বিষয়ে ইরান এখন পর্যন্ত ‘সর্বোচ্চ ধৈর্য’ দেখিয়ে আসছে। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, তিনি চান না যে ইরানের সঙ্গে কোনো যুদ্ধ বাধুক।

সম্প্রতি পারস্য উপসাগরে যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করে যুক্তরাষ্ট্র। ইরাক থেকে নিজেদের অনেক কূটনীতিকও প্রত্যাহার করে নেয় ট্রাম্প প্রশাসন। অন্যদিকে ইরানও ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করেছে বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে বলা হচ্ছে। এ অবস্থায় দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধ বাধার আশঙ্কা করছেন অনেকে।

সার্বিক বিষয় নিয়ে গত বৃহস্পতিবার জাপানের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাবেদ জারিফ। সেখানে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র যেসব উসকানি দিচ্ছে, তা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। তিনি বলেন, ‘আমি বুঝতে পারছি না যে ডোনাল্ড ট্রাম্প সমঝোতার ব্যাপারে এতটা আশাবাদী কেন? আমি তো সমঝোতার কোনো সম্ভাবনা দেখি না।’

জাবেদ জারিফ বলেন, ইরানের সঙ্গে বিশ্ব সম্প্রদায়ের যে পরমাণু চুক্তি আছে, তা থেকে গত বছর একতরফাভাবে যুক্তরাষ্ট্র সরে দাঁড়িয়েছে। এখন আবার যুদ্ধের উসকানি দিচ্ছে। কিন্তু ইরান এখন পর্যন্ত ‘সর্বোচ্চ ধৈর্য’ দেখিয়ে আসছে।

এদিকে গতকাল ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে প্রকাশিত এক ভিডিও বার্তায় জাবেদ জারিফ বলেন, ২০১৫ সালের ওই পরমাণু চুক্তি রক্ষায় চীন ও রাশিয়াকে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নিতে হবে। তিনি বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে যে ভয়াবহ পরিস্থিতি চলছে, সে বিষয়ে তিনি চীনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন।

এর আগে গত বুধবার ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ‘আমি নিশ্চিত যে ইরান খুব শিগগিরই আলোচনায় বসবে।’ একই দিন এক বৈঠকে ট্রাম্প বলেন, তিনি চান না যে ইরানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধ বাধুক। নিউ ইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইরানের সঙ্গে চলমান উত্তেজনা কমাতে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও মিত্র দেশগুলোর সঙ্গে কথাবার্তা বলছেন। এরই মধ্যে ওমানের সুলতানের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। পশ্চিমাদের সঙ্গে ইরানের সমঝোতার ক্ষেত্রে ওমানকে গুরুত্বপূর্ণ মধ্যস্ততাকারী দেশ হিসেবে ধরা হয়।

পারস্য উপসাগরে যুদ্ধজাহাজ মোতায়েনের পর থেকেই চাপের মধ্যে আছে হোয়াইট হাউস ও পেন্টাগন। যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন কেন অপরিহার্য ছিল—এখন পর্যন্ত ঘরে-বাইরে তার কোনো গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা দাঁড় করাতে পারেনি ট্রাম্প প্রশাসন। রিপাবলিকান সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম সিএনএনকে বলেন, ‘কী ঘটছে, আমার মনে হয় তা ট্রাম্প প্রশাসনের ব্যাখ্যা করা উচিত।’

এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত দুই ধরনেই ব্যাখ্যা শোনা যাচ্ছে। একটি ব্যাখ্যায় হোয়াইট হাউস বলছে, ইরাকসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন মার্কিন স্থাপনায় ইরান হামলা চালাতে পারে। কিন্তু ইরাকে পরিচালিত ইরানপন্থী দুটি সংগঠন বলছে, মার্কিন স্থাপনায় হামলার বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্রের সাজানো।

দ্বিতীয় ব্যাখ্যায় বলা হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্র চায় যে ইরানের ক্ষমতার পালাবদল ঘটুক। এ কারণেই তারা সেখানে হামলা চালাতে পারে।

সব মিলিয়ে বিশ্লেষকরা বলছেন, যুদ্ধ বাধুক বা না বাধুক, ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর থেকে ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে এখন সর্বোচ্চ উত্তেজনা বিরাজ করছে।

সূত্র : বিবিসি, এএফপি।

রাজশাহীর সময় ডট কম১৮ মে ২০১৯





© All rights reserved © 2018 rajshahirsomoy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com