বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০২:৩১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
রাজশাহী চারঘাটে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু চারঘাটে নতুন ওসির বিশেষ অভিযানে একদিনে গ্রেফতার ৬৬ জন নানা কর্মসূচিতে ইবিতে গ্রেনেড হামলা দিবস পালিত সাপাহারে ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে আলোচনা সভা ও র‌্যালী অনুষ্ঠিত একুশে আগস্টের হামলায় নিহতদের স্মরণে মহানগর সৈনিক লীগের শ্রদ্ধা নোয়াখালীতে অস্ত্রসহ আটক-১ ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণে যুবক গ্রেফতার রাজশাহীতে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে বিভিন্ন কর্মসূচি আ.লীগকে নেতৃত্ব শূন্য করতেই গ্রেনেড হামলা: পলক শুভেচ্ছা দূতের পদ থেকে প্রিয়াংকা চোপড়াকে সরাতে পাকিস্তানি মন্ত্রীর আহ্বান
সিট’-এর প্রধান থাকলেও চিটফান্ড তদন্তে সে ভাবে ঢুকিনি: সিবিআইকে জানালেন রাজীব কুমার

সিট’-এর প্রধান থাকলেও চিটফান্ড তদন্তে সে ভাবে ঢুকিনি: সিবিআইকে জানালেন রাজীব কুমার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : শিলংয়ে সিবিআই দফতরে আজ সোমবার ফের কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার ও তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন রাজ্যসভা সাংসদ কুণাল ঘোষকে মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করতে পারে কেন্দ্রীয় তদন্ত এজেন্সি।

সিবিআই সূত্রের দাবি, শনিবার ও রবিবার রাজীব কুমারকে জেরা করে তাঁরা খুব সন্তুষ্ট তা নয়। বরং চিটফান্ড কাণ্ডের তদন্তে তিনি সক্রিয় ভাবে যুক্ত ছিলেন না বলেই নাকি তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদের সময় বারবার জানিয়েছেন রাজীববাবু। সিবিআইয়ের ওই সূত্র জানাচ্ছে, রাজীববাবু তাঁদের জানিয়েছেন, চিটফান্ড কাণ্ডের তদন্তে স্পেশাল ইনভেস্টিগেটিং টিম তথা এসআইটি গঠন করা ছিল একটি প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত। তিনি এসআইটি-র প্রধান ছিলেন ঠিকই, কিন্তু যাবতীয় তদন্ত থানা স্তরে হয়েছে। তদন্তে খুবই পারদর্শিতার সঙ্গে কাজ করেছিলেন তৎকালীন বিধাননগর কমিশনারেটের গোয়েন্দা প্রধান অর্ণব ঘোষ। তা ছাড়া তাঁর উর্ধ্বতন কিছু অফিসারেরও ভূমিকা ছিল। তদন্তের সময় অর্ণব তাঁর কাছে পরামর্শ চাইলে তিনি তা মাঝে মধ্যে দিয়েছেন। কিন্তু বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার হিসাবে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বজায় রাখাই ছিল তাঁর মূল দায়িত্ব। তাতেই বেশি ব্যস্ত ছিলেন তিনি।

এই পরিস্থিতিতে সিবিআইযের তরফে পাল্টা প্রশ্ন করা হয়েছে যে, চিটফান্ড কাণ্ডে সিবিআই তদন্তের দাবি করে যখন সুপ্রিম কোর্টে মামলা হয়েছিল, তখন রাজ্য সরকার সর্বোচ্চ আদালতে হলফনামা দিয়ে বলেছিল, এসআইটি খুবই দক্ষতার সঙ্গে তদন্তের কাজ এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। ফলে সিবিআই তদন্তের প্রয়োজন নেই। যার অর্থ একটাই রাজীব কুমারের নেতৃত্বেই তদন্তের কাজ এগোচ্ছিল।

কলকাতার পুলিশ কমিশনারের পাশাপাশি চিটফান্ড কাণ্ডে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য অনেক আগেই অর্ণব ঘোষকে নোটিস পাঠিয়েছিল সিবিআই। ওই নোটিস নিয়ে প্রশ্ন তুলে ওই পুলিশ কর্তা হাইকোর্টে আবেদন করেছিলেন। তার পর অর্ণবের বিরুদ্ধে ১৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কোনও পদক্ষেপ না করার নির্দেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট। কাল মঙ্গলবার কলকাতা হাইকোর্টে ফের মামলাটি ওঠার কথা। সিবিআই সূত্র জানাচ্ছে, সুপ্রিম কোর্টের মতোই হাইকোর্ট যদি অর্ণবকে সিবিআইয়ের সঙ্গে সহযোগিতা করার নির্দেশ দেয়, তা হলে শিগগির তাঁকে ডাকা হবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য। কলকাতার পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে তাঁকে মুখোমুখি বসিয়েও জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে।
প্রসঙ্গত, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে শনিবার থেকে শিলংয়ে সিবিআই দফতরে চিটফান্ড কাণ্ডের তদন্তসূত্রে কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে শুরু করেছেন সিবিআইয়ের গোয়েন্দারা।

প্রথম প্রায় সাড়ে আট ঘণ্টা সিবিআই দফতরে ছিলেন রাজীববাবু। রবিবার আবার রাজীববাবুর পাশাপাশি হাজিরা দিতে বলা হয়েছিল কুণাল ঘোষকে। রবিবাসরীয় সন্ধ্যায় রাজীববাবুর সঙ্গে কুণালকে মুখোমুখি বসিয়েছিল সিবিআই। রবিবার প্রায় ১১ ঘণ্টা সিবিআই দফতরে ছিলেন কলকাতার পুলিশ কমিশনার।

সোমবার সেই জিজ্ঞাসাবাদ পর্বে ইতি টানা হয় কিনা বা তার মেয়াদ ফের বাড়ানো হয় কিনা এখন সেটাই দেখার।দ্য ওয়াল।

রাজশাহীর সময় ডট কম  ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯





© All rights reserved © 2018 rajshahirsomoy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com