সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ০৩:৫৪ অপরাহ্ন

সম্পূর্ণ দুর্নীতি মুক্ত দেশ বাংলাদেশ

সম্পূর্ণ দুর্নীতি মুক্ত দেশ বাংলাদেশ

রাজশাহীর সময় ডেস্ক : দুর্নীতি একটি দেশের অগ্রগতি ও উন্নতির প্রধান অন্তরায়। এই দুর্নীতির ফলে একটি দেশের এক শ্রেণীর মানুষ যেমন আঙুল ফুলে কলা গাছ হয়, তেমনি আরেক শ্রেণীর মানুষ থাকে অনাহারে। এক পরিসংখ্যানে দেখা যায় অন্যান্য মহাদেশের তুলনায় এশিয়ায় দুর্নীতির হার বেশি। সাধারণত বিভিন্ন সময় ঘটে যাওয়া দুর্নীতির বড় বড় ঘটনাগুলো মূলত এশিয়াতেই ঘটে থাকে।

এশিয়ায় দুর্নীতি নামক এই ক্ষতের গভীরতা কতটুকু সেটি খতিয়ে দেখতে এ অঞ্চলের বিভিন্ন দেশে একটি জরিপ চালিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল (টিআই)। দেড়বছর ধরে চালানো জরিপে দেখা গেছে, এশিয়ার মধ্যে সব থেকে দুর্নীতিগ্রস্থ দেশ ভারত, পাকিস্তান ও মিয়ানমার। দুর্নীতির ঐ তালিকায় নেই বাংলাদেশের নাম।

সম্প্রতি ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল (টিআই) এশিয়ার দেশগুলোর উপর করা জরিপের ফলাফল প্রকাশ করে জনপ্রিয় ম্যাগাজিন ফোর্বসে। টিআই তাদের জরিপে এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় ১৬টি দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ২০ হাজার মানুষের সঙ্গে কথা বলে। এসব মানুষের প্রতি চারজনের একজন সরকারি কোন প্রতিষ্ঠানে কাজ করতে গিয়ে ঘুষ দিয়েছেন বলে জরিপে উঠে এসেছে। কিছু দেশে দুর্নীতি সেই দেশের জনগণের প্রাত্যহিক জীবনের একটি অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এশিয়ার পাঁচটি দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের মধ্যে এক নম্বরে ভারত এরপর যথাক্রমে ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড, পাকিস্তান ও মিয়ানমার। দুর্নীতির এই অভিশাপ থেকে মুক্ত বাংলাদেশ।

জরিপে অংশ নেওয়া অর্ধেক ভারতীয়ই জানিয়েছেন, স্কুল, হাসপাতাল, জাতীয় পরিচয়পত্র, পুলিশসহ প্রতি ছয়টি সরকারি সেবা পেতে পাঁচটিতেই ঘুষ দিতে হয়েছে তাদের। ৫২ শতাংশ ভারতীয় মনে করেন , দুর্নীতির বিরুদ্ধে বর্তমান সরকার ভালো বা অনেক ভালো করছে। দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের অবস্থান ভারতীয়দের মনোবলও বৃদ্ধি করেছে। ৬২ শতাংশ ভারতীয় মনে করছেন, সাধারণ মানুষই পরিবর্তন আনতে সক্ষম।

ভিয়েতনামের মানুষ দুর্নীতিকে দেখছেন মহামারী হিসেবে। ৬০ শতাংশ মানুষের ধারণা দুর্নীতি দমনে তাদের সরকার সামান্যই কাজ করতে পারছে। দুর্নীতির বিরুদ্ধে তাদের সরকার যে সব পদক্ষেপ নিচ্ছে তা নিতান্তই দুর্বল।

পর্যটন নগরী হিসেবে সুপরিচিত থাইল্যান্ড। এই নগরীতেও রয়েছে দুর্নীতির কালো ছায়া। সরকারি দফতরসহ প্রায় সব পর্যায়েই দুর্নীতি নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে থাইল্যান্ড। তবে দেশটির বেশিরভাগ মানুষই বেশ আশাবাদী। ৭১ শতাংশ মানুষ মনে করছেন দুর্নীতি ঠেকাতে বর্তমান সেনাশাসিত সরকার যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে, তা যথার্থ।

তালিকার চতুর্থ ও পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তান ও মিয়ানমার। এই দুই দেশে ঘুষ গ্রহণের হার ৪০ শতাংশ। পাকিস্তানে জরিপে অংশ নেয়া প্রায় তিন-চতুর্থাংশ পাকিস্তানি মনে করেন, বেশিরভাগ পুলিশ সদস্য দুর্নীতিগ্রস্ত। সেই দেশের বেশির ভাগ মানুষ মনে করেন পাকিস্তানের দুর্নীতিগ্রস্ত এই অবস্থা পরিবর্তন করা অসম্ভব। একই অবস্থানে রয়েছে মিয়ানমার। প্রতিবেশী দেশগুলোর দুর্নীতির এই কালো ছায়া থেকে মুক্ত বাংলাদেশ। দেশের দুর্নীতি দমন কমিশন ও বর্তমান সরকারের কঠোর পদক্ষেপের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে দূর হয়েছে দুর্নীতি নামক অভিশাপ। সরকারের দক্ষ দিকনির্দেশনার মাধ্যমে সম্পূর্ণ দুর্নীতি মুক্ত দেশ গড়তে সক্ষম হয়েছে এবং দুর্নীতি দমনে বদ্ধ পরিকর এই দেশ।সূত্র: বাংলা আমার

রাজশাহীর সময় ডট কম ১০ নভেম্বর, ২০১৮





© All rights reserved © 2018 rajshahirsomoy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com