ঢাকা বৃহস্পতিবার, মার্চ ৪, ২০২১
শীত এলেই বাড়ে সায়াটিকার ব্যথা, কী করবেন
  • Rajshahir Somoy Desk
  • ২০২০-১১-২৫ ১৬:৪৮:১৩
ফাইল ফটো

ফারহানা জেরিন এলমা : শীতে শরীরে রক্ত চলাচল কম হয়। মাংসপেশী ও নার্ভ শক্ত হয়ে থাকে। এ কারণে মাঝেমধ্যে কোমর, পা ও মাংসপেশীতে ঝিঁঝি ধরে থাকে। এ সময় কোমর ও পায়ের ব্যথাও বাড়ে।

এ ছাড়া শীতে কোমর বা অন্যান্য জয়েন্টের মাংসপেশীতে ক্র্যাম্প বা টান বেশি লাগে। এতে মেরুদণ্ডের মাংসপেশী ইমব্যালেন্স হয় বা ভারসাম্যতা কমে যায়। ফলে মেরুদণ্ডের ডিস্কের ওপর অতিরিক্ত চাপ পড়ে। ডিস্ক প্রলাপ্স হয় ও ব্যথা পায়ে চলে যায় এবং সায়াটিকার উৎপত্তি হয়।

সায়াটিকার কারণ

মেরুদণ্ডের হাড় সরে (স্পনডাইলোলিসথিসিস) গিয়ে যদি সায়াটিক নার্ভে চাপ দেয়। পাইরিফরমিস মাংসপেশী শক্ত হয়ে গেলে, ডিস্ক প্রলাপ্সের কারণে কোমর থেকে জেলি বের হয়ে নার্ভের ওপর চাপ দিলে।

ডিজেনারেশন বা স্পনডাইলোসিস হলে (কোমরের হাড় ক্ষয় বা বেড়ে যাওয়া)। মেরুদণ্ডের নার্ভ চলাচলের রাস্তা (স্পাইনাল ক্যানেল স্টেনসিস) সরু হলে।

গর্ভাবস্থায় সায়াটিকার ব্যথা হতে পারে। আঘাতজনিত কারণে সায়াটিক নার্ভের ব্যথা হতে পারে।

কীভাবে বুঝবেন সায়াটিকা হয়েছে

ব্যথা কোমর থেকে নিচের দিকে গেলে, পা ঝিনঝিন, জ্বালাপোড়া, ভারী ভারী এবং অবস অবস ভাব হলে।

হাঁটতে গেলে ব্যথা বাড়া, রাতে ঘুমে অথবা বসে থাকলেও সায়াটিকার ব্যথা, শীতের সকালে ঘুম থেকে উঠলে ব্যথা ও পা দুর্বল লাগা সায়াটিকার সতর্ক সংকেত।

এ ছাড়া কাশি দিয়ে কোমর বা পায়ে চিলকানো ব্যথা হতে পারে, পায়ে টান লাগতে পারে, ব্যথা বাড়তে পারে- শরীরের অতিরিক্ত ওজন, হাই হিল অথবা উঁচু জুতা পরলে, অতিরিক্ত নরম বিছানা ব্যবহার করলে।

কী করবে  

বাইরে বের হওয়ার আগে মাংসপেশী অথবা জয়েন্টের স্ট্রেচিং করতে হবে। পায়ে অতিরিক্ত চাপ দিয়ে কাজ করা যাবে না। এতে পায়ের শিন শিন ব্যথা বা ঝিন ঝিন ভাব হতে পারে।

পায়ে মোজাসহ সঠিক শীতের পোশাক পরতে হবে। যাতে শরীর এবং পা স্বাভাবিক গরম থাকে। এতে রক্ত চলাচল সঠিকভাবে হয়।

প্রতিদিন কমপক্ষে ৮-১০ গ্লাস পানি পান করা। শরীরের ওজন ঠিক রাখা, তোশকের বিছানা ব্যবহার করা ও পুষ্টিকর খাবার খাওয়া। 

রাজশাহীর সময় ডট কম – ২৫ নভেম্বর ২০২০

দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা এসি ও ফ্যান চালানোর আগে যা করবেন
ফার্নিচার সাজানোর যেসব ভুলে অগোছালো লাগে ঘর
প্রিডায়াবেটিসে আক্রান্ত হলে বুঝবেন যেসব লক্ষণে