বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:২৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বিরাট সংকটের মুখে ভারতীয় ব্যাঙ্কগুলি, সতর্ক করলেন নোবেলজয়ী অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় ভারতে বাবার চেয়ে বেশি বয়সের লোকের কাছে ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি নাবালিকাকে, পথের কুকুরদের পেট ভরে মাংস ভাত খাইয়ে জন্মদিন পালন যুবকের রাষ্ট্র শব্দের অর্থ খুঁজছে যোগাযোগ হারানো কাশ্মীর মায়ানমারকে আরও ৫০ হাজার রোহিঙ্গার তালিকা দিল বাংলাদেশ স্ত্রীকে চুম্বনের সময় আটকে গিয়েছিল জিভ, তাই কেটে ফেলতে হয়েছে গয়না বিক্রি করতে চাপ, শ্বশুরবাড়ির মারধরে হাসপাতালে গৃহবধূ বলিউডে যৌন হেনস্তা নিয়ে বিস্ফোরক কৃতী শ্যানন ধর্ষণের বিচার চাওয়ায় পানি-বিদ্যুৎ লাইন কেটে দিল আসামিরা ৪৬ লাখ টাকার রাস্তায় হাত দিলেই উঠে যাচ্ছে কার্পেটিং
রাজশাহীর মতিহারে বয়স্ক ভাতার টাকায় ভাগ বসানোর অভিযোগ, মহিলা কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে

রাজশাহীর মতিহারে বয়স্ক ভাতার টাকায় ভাগ বসানোর অভিযোগ, মহিলা কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে

রাজশাহীর মতিহারে বয়স্ক ভাতার টাকায় ভাগ বসানোর অভিযোগ, মহিলা কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে
রাজশাহীর মতিহারে বয়স্ক ভাতার টাকায় ভাগ বসানোর অভিযোগ, মহিলা কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে

নিজস্ব প্রতিবেদক : বয়স্ক ভাতার টাকায় ভাগ বসানোর অভিযোগ উঠেছে রাসিক ২৮নং ওয়ার্ড মহিলা কাউন্সিলর লাইলী বেগমের বিরুদ্ধে। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধার পর সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান ভূক্তভোগী মাজেদা বেওয়ার মেয়ে সপ্না বেগম।

তিনি বলেন, গত (২৬ সেপ্টম্বর ১৯) বিকালে রাজশাহী নগরীর মতিহার থানাধিন কাজলা মোড়ে অবস্থিত সোনালী ব্যাংকে (কাজলা শাখা) বয়স্ক ভাতার ৬ হাাজার টাকা উত্তোলন করেন। ব্যাংক থেকে সিড়ি বেয়ে নামার সময় তাদের পথরোধ করে দাঁড়ায় ২৫,২৮ ও ২৯ নং ওয়ার্ড মহিলা কাউন্সিলর লাইলী বেগমের ছেলে সম্রাট।

এ সময় সম্রাট সপ্না বেগমকে বলেন, ৬ হাজার টাকার মধ্যে ৪ হাজার টাকা ফেরত দেন। কারন জানতে চাইলে সম্রাট বলে মায়ের নিকট জেনে নিয়েন, এই টাকা আমাদের কয়েক জায়গায় দিতে হয়।

সপ্না বেগম বলেন আমার মা খুব অসুস্থ। পুরো শরীরে ঘাঁ তাঁর। তিনি বিছনা থেকে উঠে বসতে পারেননা। দয়া করে এই টাকা নিয়েননা। তারপরও এক প্রকার জোর করেই ৪ হাজার টাকা নিয়ে নেয় মহিলা কাউন্সিলরের ছেলে সম্রাট।

ভূক্তভোগী মাজেদা বেওয়া কাজলা চৌরাস্তার মোড়ের মৃত জব্বার মৌলভীর ছেলে। তার বয়স্ক ভাতা পরিশোধ বই নম্বর ১৪২৪৯, ব্যাংকক হিসাব নং-০১০১১৬৬০। যাহা সমাজসেবা অধিদফতর, বাংলাদেশ সরকারের সমাজ কল্যান মন্ত্রালয় থেকে এ ভাতা প্রদান করে থাকে।

জানতে চাইলে মহিলা কাউন্সিলর লাইলী বেগম বলেন, আমি প্রত্যেককে ৬ হাজার টাকা হারে প্রদান করেছি। কতজনকে টাকা প্রদান করেছেন তা তিনি জানাতে পারেননি।

এ রকম আরো বেশ কয়েকটি অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

একজন ভূক্তভোগী জানালেন, এরই মধ্যে কয়েকজন ভূক্তভোগীর বাসায় গিয়েছেন মহিলা কাউন্সিলর। সাংবাদিকদের তথ্য না দেওয়ার জন্য নিষেধ করছেন তিনি।                     

রাজশাহীর সময় ডট কম -০৯ অক্টোবর ২০১৯





© All rights reserved © 2019 rajshahirsomoy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com