সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ০২:৫৩ পূর্বাহ্ন

মোদি কাপুরুষ বলেই নিষ্ঠুর আচরণ করছেন : ইমরান

মোদি কাপুরুষ বলেই নিষ্ঠুর আচরণ করছেন : ইমরান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতশাসিত কাশ্মীরের মুসলিমদের প্রতি সহমর্মিতা জানাতে গতকাল শুক্রবার আয়োজিত জনসভায় পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ‘কাপুরুষ’ অ্যাখ্যা দিয়েছেন। গত ৩০ আগস্ট থেকে প্রতি শুক্রবার ‘কাশ্মীর সময়’ পালন করছে পাকিস্তান। গতকাল ওই কর্মসূচির অংশ হিসেবে পাকিস্তানের মুজাফফরাবাদে জনসভা করা হয় এবং এতে দেওয়া ভাষণে ইমরান ভারতের সরকারপ্রধানের সমালোচনা করেন। এর আগের দিন বৃহস্পতিবার তিনি কাশ্মীরে শান্তি ফেরানোর ওপর জোর দেওয়া ৫৮টি দেশ ও ইউরোপীয় ইউনিয়নকে (ইইউ) সাধুবাদ জানান।

পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মীরের রাজধানী মুজাফফরাবাদে গতকালের জনসভার শুরুতে ইমরান বলেন, ‘আমি কাশ্মীরিদের দূত হয়েছি, কারণ আমি একজন পাকিস্তানি, একজন মুসলিম ও একজন মানুষ। কাশ্মীর ইস্যু আজ এক মানবিক সংকট।’

ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে লক্ষ্য করে ইমরান বলেন, ‘একমাত্র কাপুরুষের পক্ষেই মানুষের ওপর এ রকম নিষ্ঠুরতা চালানো সম্ভব। অধিকৃত কাশ্মীরের জনগণের ওপর আজ ৯ লাখ সেনা নৃশংসতা চালাচ্ছে। একজন নির্ভীক পুরুষ কখনো এ কাজ করতে পারে না। যত অন্যায়ই আপনারা করুন, আপনারা কখনো সফল হতে পারবেন না। কারণ কাশ্মীরের জনগণ, হোক সে নারী, শিশু বা বৃদ্ধ, কেউ আর মৃত্যুকে ভয় পায় না।’

এ সময় মোদির রাজনৈতিক অতীত তুলে ধরে পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) নেতা বলেন, ‘মোদি যে শৈশব থেকেই আরএসএসের (রাষ্ট্রীয় সেবক সংঘ) সদস্য ছিলেন, সে কথা আমাদের জানা দরকার। ওটা এক চরমপন্থী হিন্দুগোষ্ঠী এবং ওরা মুসলিম, খ্রিস্টান আর অন্য সব সংখ্যালঘুকে ঘৃণা করে।’ আরএসএসের সমালোচনা করে তিনি আরো বলেন, ‘ওরা হিন্দু শ্রেষ্ঠত্ববাদে বিশ্বাসী এবং মুসলিমদের প্রতি ঘৃণার কারণ হলো মুসলিমরা বহু বছর ভারত শাসন করেছে।’ জার্মান নেতা অ্যাডলফ হিটলারের নািস বাহিনীর নৃশংতার পথে হাঁটছে আরএসএস, এমন মন্তব্যও করেন সাবেক এই ক্রিকেটার। তাঁর অভিযোগ, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই ওই কট্টরপন্থী সংগঠন ভারত থেকে মুসলিমদের নিশ্চিহ্ন করার পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে।

ভারত গত ৫ আগস্ট সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের মাধ্যমে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যদা কেড়ে নিয়ে সেখানে কেন্দ্রের শাসন জারি করে। সরকারের এ পদক্ষেপের বিরুদ্ধে কাশ্মীরি বিক্ষোভ ঠেকাতে সেখানে কারফিউ জারি করা হয়, সব ধরনের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয় এবং সর্বস্তরের জনগণের মধ্যে ব্যাপক ধরপাকড় চালানো হয়। এসবের মধ্যেই কাশ্মীরিরা বিক্ষোভ করেছে।

ভারতের কাশ্মীর সিদ্ধান্তের কট্টর বিরোধী পাকিস্তান ইস্যুটিকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তুলে ধরে এবং এতে চীনের সায় আছে। এ দুই দেশের ঐকমত্যের পরিপ্রেক্ষিতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ (ইউএনএসসি) কাশ্মীর নিয়ে আলোচনা করে, যদিও সেখানে কোনো প্রস্তাব পাস হয়নি। পরিষদের সদস্যরা ভারত-পাকিস্তান দ্বিপক্ষীয় আলোচনার মাধ্যমে কাশ্মীর ইস্যু সমাধানের ওপর জোর দেন। অন্যদিকে ভারত জানিয়েছে, দ্বিপক্ষীয় বিষয়ে তারা তৃতীয় পক্ষের মধ্যস্থতা চায় না।

ভারতের এমন অবস্থানের বিরোধিতা করে ইমরান গতকাল বলেন, ‘কাশ্মীর এখন আন্তর্জাতিক বিষয়। ৫০ বছরের মধ্যে এই প্রথম জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ কাশ্মীর ইস্যুতে বৈঠক করেছে।’ কাশ্মীর ইস্যুতে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক জোট ও বিদেশি নেতাদের বক্তব্যও তুলে ধরেন ইমরান।

আন্তর্জাতিক অঙ্গনের দৃষ্টি আকর্ষণের লক্ষ্যে মুজাফফরাবাদে করা জনসভার আগের দিন ইমরান টুইটারে ৫৮টি দেশ ও ইইউর প্রশংসা করে একটি টুইট করেন। টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘ভারত যেন (কাশ্মীরে) বলপ্রয়োগ বন্ধ করে, অবরোধ তুলে নেয়, অন্যান্য নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে, কাশ্মীরিদের অধিকারের প্রতি সম্মান দেখায় ও সেটা রক্ষা করে এবং ইউএনএসসির প্রস্তাব অনুসারে ভারত যেন কাশ্মীর বিতর্কের সমাধান করে, সে ব্যাপারে আন্তর্জাতিক অঙ্গনের দাবি জোরালো করতে ১০ সেপ্টেম্বর যে ৫৮টি দেশ মানবাধিকার পরিষদে পাকিস্তানের সঙ্গে যোগ দিয়েছে, তাদের আমি সাধুবাদ জানাই।’ তিনি আরো লিখেছেন, ‘ইউএনএসসির প্রস্তাব, আন্তর্জাতিক আইন ও দ্বিপক্ষীয় চুক্তি অনুসারে কাশ্মীর সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য মানবাধিকার পরিষদের প্রতি ইইউ আহ্বান জানানোয় আমি তাদের স্বাগত জানাই।’ সূত্র : ডন।

রাজশাহীর সময় ডট কম -১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯





© All rights reserved © 2019 rajshahirsomoy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com