বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বিরাট সংকটের মুখে ভারতীয় ব্যাঙ্কগুলি, সতর্ক করলেন নোবেলজয়ী অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় ভারতে বাবার চেয়ে বেশি বয়সের লোকের কাছে ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি নাবালিকাকে, পথের কুকুরদের পেট ভরে মাংস ভাত খাইয়ে জন্মদিন পালন যুবকের রাষ্ট্র শব্দের অর্থ খুঁজছে যোগাযোগ হারানো কাশ্মীর মায়ানমারকে আরও ৫০ হাজার রোহিঙ্গার তালিকা দিল বাংলাদেশ স্ত্রীকে চুম্বনের সময় আটকে গিয়েছিল জিভ, তাই কেটে ফেলতে হয়েছে গয়না বিক্রি করতে চাপ, শ্বশুরবাড়ির মারধরে হাসপাতালে গৃহবধূ বলিউডে যৌন হেনস্তা নিয়ে বিস্ফোরক কৃতী শ্যানন ধর্ষণের বিচার চাওয়ায় পানি-বিদ্যুৎ লাইন কেটে দিল আসামিরা ৪৬ লাখ টাকার রাস্তায় হাত দিলেই উঠে যাচ্ছে কার্পেটিং
গোপনাঙ্গে ছুরি ঠেকিয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণ

গোপনাঙ্গে ছুরি ঠেকিয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণ

রাজশাহীর সময় ডেস্ক : ইলেকট্রিক শক দিয়ে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে গোপনাঙ্গে ছুরি ঠেকিয়ে গৃহবধূকে লাগাতার ধর্ষণের অভিযোগ প্রতিবেশী যুবকের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব মেদিনীপুরের খেজুরির কৃষ্ণনগর মোহাটি এলাকায়। মহরম বলে অভিযোগ নিতে অস্বীকার পুলিসের, পাল্টা দাবি নির্যাতিতার পরিবারের।

নির্যাতিতার বয়ান অনুযায়ী, মঙ্গলবার তিনি বাড়ির সামনে পুকুরে স্নান করছিলেন। ঘর ফাঁকাই ছিল। তাঁর স্বামী পৌরহিত্য করেন, ঘটনার সময়ে কাজের সূত্রেই বাড়ির বাইরে ছিলেন তিনি। অভিযোগ, নির্যাতিতা ঘরে ঢুকে দেখেন এক যুবক আগে থেকেই খাটের ওপর বসে রয়েছে। ওই যুবক প্রথমে গৃহবধূকে কুপ্রস্তাব দেয়। তাতে রাজি না হওয়ায় গৃহবধূর ওপর চড়াও হয় সে।

গৃহবধূর অভিযোগ, তাঁর মুখে কাপড় গুঁজে দেয় ওই যুবক। এরপর গোপনাঙ্গে ছুরি ঠেকিয়ে তাঁকে ধর্ষণ করে। শুধু তাই নয়, ইলেকট্রিক শক দিয়ে তাঁকে মেরে ফেলার হুমকিও দেয় সে।

নির্যাতিতার বয়ান অনুযায়ী, ধর্ষণের পর নিজেই দরজা খুলে ঘর থেকে বেরিয়ে যায় ওই যুবক। কিছুক্ষণ বাদে স্বামী এলে গোটা বিষয়টি জানান তিনি। প্রথমে তাঁরা লজ্জায় আত্মঘাতী হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু তাঁদের কথা শুনে ফেলেন প্রতিবেশী এক মহিলা। তিনিই গ্রামবাসীদের ডেকে আনেন। এরপর খেজুরি থানায় অভিযোগ দায়ের করতে যান তাঁরা। কিন্তু মহরম বলে পুলিসও অভিযোগ নিতে অস্বীকার করে বলে দাবি পরিবারের। প্রতিবেশীদের কথায় নির্যাতিতা ও তাঁর স্বামী আইনজীবীর দ্বারস্থ হন। এরপর অতিরিক্ত পুলিস সুপারের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন তাঁরা।

এপ্রসঙ্গে হেঁড়িয়ার আইসি দীপক চক্রবর্তী বলছেন, “ওঁরা এখানে আসেননি খেজুরি থানায় গিয়েছিলেন। আমাকে ফোন করেছিলেন। আমি বলেছিলাম, অভিযোগ লিখে আনতে।” অন্যদিকে খেজুরির থানার ওসি গোপাল পাঠক আবার বিষয়টিই অস্বীকার করে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, “এরকম কোনও অভিযোগ থানা আসেনি। অভিযোগ এলে নিশ্চয়ই তা নেওয়া হত।” যদিও নির্যাতিতার আইনজীবীর বক্তব্য, মহরম বলে অভিযোগ নিতেই অস্বীকার করেছে পুলিস। পরে তাঁরা এসিপির কাছে যান। তারপর তদন্ত শুরু হয়। ঘটনায় জেলা সনাতন ব্রাহ্মণ ট্রাস্টর পক্ষেও তোড়জোড় শুরু করা হয়েছে।

রাজশাহীর সময় ডট কম -১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯





© All rights reserved © 2019 rajshahirsomoy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com