মঙ্গলবার, ১৬ Jul ২০১৯, ০২:৫৬ অপরাহ্ন

আরো দুই কংগ্রেস বিধায়কের পদত্যাগ

আরো দুই কংগ্রেস বিধায়কের পদত্যাগ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের কর্ণাটক রাজ্যে রাজনৈতিক খেলা আরো জমেছে। রাজ্যের রাজনীতি বেঙ্গালুরু থেকে মুম্বাই হয়ে এবার একেবারে সুপ্রিম কোর্টের দোরগোড়ায় পৌঁছে গেছে। স্পিকার রমেশ কুমারের বিরুদ্ধে অসাংবিধানিক কাজের অভিযোগ এনে বিক্ষুব্ধ বিধায়করা সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার এ ব্যাপারে শুনানি হতে পারে।

এদিকে গতকাল বুধবার আরো দুই কংগ্রেস বিধায়ক স্পিকারের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। এ নিয়ে পদত্যাগকারী বিধায়কের সংখ্যা ১৮-তে দাঁড়াল। ফলে ক্ষমতাসীন কংগ্রেস-জনতা দল সেক্যুলারের (জেডিএস) জোট আরো বেকায়দায় পড়ল। গতকাল সকালে বিক্ষুব্ধ বিধায়কদের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে প্রবল বাধার মুখে পড়েন কর্ণাটকের কংগ্রেস নেতা ডি কে শিবকুমার। জোট সরকারের হয়ে বুধবার সকালে মুম্বাইয়ে বিধায়কদের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন তিনি। মুম্বাইয়ের যে হোটেলে বিধায়করা রয়েছেন সেখানে পৌঁছতেই পুলিশের বাধার মুখে পড়েন। পুলিশ তাঁকে আটক করে। পরে তিনি বেঙ্গালুরুতে ফিরে যান।

দুই কংগ্রেস বিধায়ক পদত্যাগের আগে রাজ্যপালের কাছে স্মারকলিপি দিয়ে এসেছেন বিজেপি নেতা বি এস ইয়েদুরাপ্পা। তাঁর সঙ্গে দেখা করার পর ইয়েদুরাপ্পা বলেন, ‘নির্দল বিধায়কসহ ১৫ জন বিধায়ক ইস্তফা দিয়েছেন। ফলে জোট সরকারের বিধায়ক সংখ্যা বর্তমানে দাঁড়িয়েছেছে ১০৩-এ। সেখানে আমাদের রয়েছে ১০৭-১০৮।’ তিনি বলেন, ‘রাজ্যপালের কাছে আরজি জানিয়েছি, এ ব্যাপারে দ্রুত পদক্ষেপ করতে। মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে কাজ চালিয়ে যাওয়ার এখন কোনো নৈতিক অধিকার নেই কুমারস্বামীর।’

অন্যদিকে কংগ্রেস নেতা সিদ্দারামাইয়া বলেন, ‘রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিলাম। এই রাজনৈতিক সংকটের জন্য বিজেপি দায়ী, এ কথা তাঁকে জানানোর চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু পুলিশ রাজ্যপালের সঙ্গে আমাদের দেখা করতে দেয়নি।’

গতকাল শিবকুমার যখন হোটেলে ঢুকতে যান, এক পুলিশ কর্মকর্তা তাঁকে বলেন, ‘আমরা আপনাকে ভেতরে যেতে দিতে পারব না। কারণ আমাদের কাছে সেই অনুমতি নেই।’ এদিকে শিবকুমারকে দেখামাত্রই ক্ষোভে ফেটে পড়েন বিধায়করা। হোটেলের বন্ধ গেটের ওপার থেকে শিবকুমারকে লক্ষ্য করে তাঁরা ‘গো ব্যাক’ স্লোগান দিতে থাকেন।

মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামী, শিবকুমার, অন্যান্য কংগ্রেস ও জেডিএস নেতার হাত থেকে বাঁচানোর জন্য সোমবার রাতেই পুলিশকে চিঠি লেখেন বিক্ষুব্ধ বিধায়করা। কুমরাস্বামী এবং শিবকুমার দলবল নিয়ে হোটেলে জোর করে ঢুকে পড়তে পারেন—এমন আশঙ্কার কথাও লিখে মুম্বাই পুলিশপ্রধানকে চিঠি দেন ১০ বিধায়ক। সেই চিঠি পাওয়ার পরই ১০০ জন পুলিশ হোটেলের বাইরে মোতায়েন করা হয়। সূত্র : এনডিটিভি, আনন্দবাজার পত্রিকা।

রাজশাহীর সময় ডট কম১১ জুলাই ২০১৯





© All rights reserved © 2018 rajshahirsomoy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com