শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১২:২০ অপরাহ্ন

নাতিকে বাঁচাতে গিয়ে গাছের ডাল চাপায় মারা গেছেন দাদা

নাতিকে বাঁচাতে গিয়ে গাছের ডাল চাপায় মারা গেছেন দাদা

ঝড়ে সড়কে গাছ পড়ে যান চলাচল বন্ধ। ছবি সংগৃহীত

রাজশাহীর সময় ডেস্ক : মৌলভীবাজারের বড়লেখায় নাতিকে বাঁচাতে গিয়ে ডালচাপায় মারা গেছেন দাদা নিমার আলী (৬০)। সোমবার সকালে কালবৈশাখীর ছোবলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

কুলাউড়া-বড়লেখা আঞ্চলিক মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে রাস্তার পাশের অসংখ্য গাছ উপড়ে রাস্তায় পড়ে প্রায় দুই ঘণ্টা সড়ক যোগাযোগ বন্ধ থাকে। লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে বিদ্যুৎ লাইন।

নিহত নিমার আলী উপজেলার গৌড়নগর গ্রামের মৃত জয়াদ আলীর ছেলে।

জানা গেছে, সোমবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে কালবৈশাখী ঝড় বইতে থাকে। প্রায় এক ঘণ্টার কালবৈশাখী ঝড়ের ছোবলে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক গাছপালা উপড়ে পড়েছে। বিধ্বস্ত হয়েছে শতাধিক ঘরবাড়ি।

দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপির গৌড়নগর গ্রামের দুবাই প্রবাসী হারুফ আহমদের শিশুপুত্র ঝড়ের মধ্যে বসতঘরের সামনের আমগাছের নিচে আম কুড়াতে যায়। এ সময় দাদা নিমার আলী তাকে ধমক দিয়ে ঘরে ফেরান। কিন্ত নাতি ঘরে পৌঁছালেও তীব্র ঝড়ে আমগাছের বড় একটি ডাল ভেঙে দাদা নিমার আলীর ওপরে পড়লে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

এদিকে কালবৈশাখীর ছোবলে মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতসংলগ্ন ইলাম খাসিয়া পুঞ্জির গির্জা ভেঙে তছনছ হয়েছে। বসতঘরের ওপর অসংখ্য গাছ উপড়ে পড়ে ভেঙে গেছে আদিবাসীর ব্যাপক বসতঘর।

কুলাউড়া-বড়লেখা আঞ্চলিক মহাসড়কের বাছিরপুর, চালবন্দ, কাঁঠালতলীসহ কয়েকটি স্থানে রাস্তার পাশের বড় বড় গাছ রাস্তার ওপর পড়ায় প্রায় দুই ঘণ্টা সড়ক যোগাযোগ বন্ধ থাকে। এ সময় অফিস-আদালতমুখী অনেক সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী রাস্তায় আটকা পড়েন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তাবায়ন কর্মকর্তা মো. উবায়দুল্লাহ খান জানান, বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ঝড়ে ক্ষয়ক্ষতির কথা টেলিফোনে জানিয়েছেন। তালিকা তৈরি করে অফিসে প্রেরণের জন্য বলেছেন। ইউএনও মো. শামীম আল ইমরান ও তিনি ক্ষতিগ্রস্ত কিছু এলাকা পরিদর্শন করেছেন। সূত্র: যুগান্তর।

রাজশাহীর সময় ডট কম১৫ এপ্রিল ২০১৯





© All rights reserved © 2018 rajshahirsomoy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com