শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৯:১৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বগুড়ায় বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ গ্রেফতার ২ রাজশাহীতে আওয়ামী লীগ নেতার মাতার ইন্তেকাল, মেয়র লিটন ও ডাবলু সরকারের শোক প্রকাশ ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন সফল করার লক্ষ্যে নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময় করেন, ডাবলু সরকার আমান সিম সাওতুল কোরআনের ইয়েস কার্ড পেলো রাজশাহীর দুই খুদে ক্বারী রাজশাহী নগরীতে জালিয়াতির মাধ্যমে বিয়ে পড়ানোর অভিযোগ কাজী নুরুলের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুগুলী দেখিয়ে রাজশাহী মহানগরীতে ২টি পুকুর ভরাট (ভিডিও) রাবির লতিফ হলে বঙ্গবন্ধুর রিলিফ ভাস্কর্য উন্মোচন দুর্গাপুরে মাইক্রোবাস উল্টে র‌্যাব সদস্য আহত-৩ রাবিতে জালালাবাদ স্টুডেন্টস এসোসিয়েশনের নেতৃত্বে সূচি-এহসান হিমায়িত কুমির রফতানিতে বছরে আয় ১৫ কোটি টাকা
বিএনপির হামলার আশংকায় ভোটাররা ভোট দিতে আসেনি : রাজশাহীতে তথ্যমন্ত্রী

বিএনপির হামলার আশংকায় ভোটাররা ভোট দিতে আসেনি : রাজশাহীতে তথ্যমন্ত্রী

বিএনপির হামলার আশংকায় ভোটাররা ভোট দিতে আসেনি : রাজশাহীতে তথ্যমন্ত্রী
বিএনপির হামলার আশংকায় ভোটাররা ভোট দিতে আসেনি : রাজশাহীতে তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : তথ্যমন্ত্রী ও আ’লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপির লোকজন হামলা করবে, এমন আশঙ্কা থেকেই ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটাররা ভোট দিতে আসেনি। তিনি বলেন, ঢাকা সিটি নির্বাচন নিয়ে নানারকম বিচার-বিশ্লেষণ চলছে। কিন্তু উপমহাদেশের মানদণ্ডে এটি একটি ভালো নির্বাচন হয়েছে। ভোটকেন্দ্রে কোনো হাঙামা ঘটেনি। সিল মারার ঘটনা ঘটেনি। ইভিএমে ভোট গ্রহণ করার কারণে এসব বিশৃঙ্খলা ঘটেনি। কারণ, ইভিএমে একজনের ভোট অন্যজনের দেয়ার সুযোগ নেই। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজশাহী শিল্পকলা একাডেমীতে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপি প্রথম থেকেই ইভিএমের বিরুদ্ধে যেভাবে প্রচারণা চালিয়েছে তাতে সাধারণ ভোটাররা বিভ্রান্ত হয়েছে। এটি যদি না হতো তাহলে আরও ৮ থেকে ১০ শতাংশ ভোট বেশি পড়তো। এছাড়া তারা প্রথম থেকেই বলেছে যে ‘এই নির্বাচন হচ্ছে আমাদের আন্দোলনের অংশ। আর বিএনপির আন্দোলন মানেই মানুষ জানে ‘জ্বালাও-পোড়াও’। ২০১৪ সালে তারা নির্বাচন বানচাল করার জন্য পাঁচটি ভোটকেন্দ্র জ্বালিয়ে দিয়েছিল। প্রিজাইডিং অফিসারকে হত্যা করেছে। ভোটারকে হত্যা করেছে। সুতরাং তারা যখন ঘোষণা দেয় এই নির্বাচন আন্দোলনের অংশ তখন মানুষ ‘হাঙ্গামার’ আশঙ্কাই করেন। সেই আশঙ্কার করেণেই অনেকে ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে যাননি।

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ উল্লেখ করে বলেন, জনসংখার দিক থেকে ঢাকা শহর হচ্ছে পৃথিবীর অন্যতম একটি শহর। সেই শহরে প্রায় ৫৫ লাখ ভোটার রয়েছে। এত সংখ্যক ভোটারের শহরে নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করা সহজ কথা নয়। তাই আমি মনে করি সেজন্য নির্বাচন কমিশন ধন্যবাদ পাওয়ার অধিকার রাখে।

মন্ত্রী আরো বলেন, ইভিএম নিজেই প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দলের একজন এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। আঙুলের ছাপ নিয়ে সমস্যার কারণে খোদ প্রধান নির্বাচন কমিশনার ভোট দিতে গিয়ে বিড়ম্বনায় পড়েছেন। কিন্তু ইভিএম নিয়ে বিএনপি নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে। আসলে বিএনপি প্রযুক্তিকে সব সময় ভয় পায়।

তিনি বলেন, বিএনপি সরকার ক্ষমতায় থাকার সময় বিনামূল্যে বাংলাদেশে সাব-মেরিন ক্যাবল দিতে চাওয়া হয়েছিল। তখনকার প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া বলেছিলেন, সাব-মেরিন ক্যাবলের সঙ্গে যুক্ত হলে বাংলাদেশের সব গোপন তথ্য বাইরে চলে যাবে। তিনি সাব-মেরিন ক্যাবলে বাংলাদেশকে যুক্ত করেননি। পরে রাষ্ট্রীয় অর্থ ব্যয় করে আমাদের সাব-মেরিন ক্যাবলের সঙ্গে যুক্ত হতে হয়েছে।

সভায় আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়নের আহ্বান জানিয়ে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, দায়িত্ব পালনের সময় দলকে গুরুত্ব দিতে হবে। নিজস্ব বলয় তৈরি করা সমীচিন হবে না। মৌচাকে মধু না থাকলে কাউকে পাশে পাওয়া যায় না। ত্যাগী নেতাকর্মীদেরম মূল্যায়ন করতে হবে। অনুপ্রবেশকারীরা সাংগঠনিক পদে থাকলেও বাদ দিতে হবে। ২০১৪ সালের নির্বাচনের পর যারা পিঠ বাঁচানোর জন্য আওয়ামী লীগে এসেছে তাদের রাখা যাবে না।

সভায় আওয়ামী লীগের রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন আগামী মার্চ মাস থেকেই রাজশাহীর উপজেলা পর্যায়ে সম্মেলনের নির্দেশ দেন। এসময় সম্মেলনে নিজের আত্মীয়দের পদ-পদবিতে আনার ব্যাপারেও সতর্ক করে দেন তিনি। এসএম কামাল হোসেন বলেন, নিজের লোক টেনে লাভ নেই। আওয়ামী লীগে শেখ হাসিনা ছাড়া কেউ গুরুত্বপূর্ণ নয়। আর ২০১৪ সালের পর যারা আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন তারা দলের নেতা হতে পারবেন না বলেও তিনি ঘোষণা দেন।

প্রতিনিধি সভায় সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেরাজ উদ্দিন মোল্লা। প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. রেবেকা সুলতানা, কেন্দ্রীয় সদস্য নূরুল ইসলাম ঠান্ডু , বেগম আখতার জাহান, মেরিনা জাহান কবিতা, রাজশাহী-৩ আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন, রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক, রাজশাহী-৫ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মনসুর রহমান ও সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য আদিবা আনজুম মিতা। সভা পরিচালনা করেন জেলা সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওয়াদুদ দারা।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত কমিটির এটি প্রথম প্রতিনিধি সভা। সভায় জেলা নেতৃবৃন্দ ও তৃণমূলের কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ দুই দিনের সরকারি সফরে বৃহস্পতিবার রাজশাহী এসেছেন। মন্ত্রী সকাল সাড়ে ১০টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সভায় যোগ দেন। একই স্থানে বিকেলে তিনি রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার এবং সন্ধ্যায় সার্কিট হাউজের সভাকক্ষে রাজশাহী জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময় করার কথা রয়েছে।

শুক্রবার সকালে মন্ত্রী পাবনা যাবেন। পাবনা সরকারি অ্যাডওয়ার্ড কলেজ অডিটোরিয়ামে জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় যোগ দেবেন। এদিন তিনি পাবনা থেকে রাজশাহী ফিরবেন এবং ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেবেন।

রাজশাহীর সময় ডট কম০৬ ফেব্রুয়ারী , ২০২০





© All rights reserved © 2020 rajshahirsomoy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com